Advertisements

শীতে ওয়েস্টার্ন ড্রেসের ভিন্ন আমেজ

|রূপ-কেয়ার ডেস্ক|

rupcare_winter-western0 শীতে ওয়েস্টার্ন ড্রেসের ভিন্ন আমেজ

হাল সময়ে আমাদের ফ্যাশনে এসেছে আধুনিক রূপ। তাই ফ্যাশনে বাঙালিয়ানার সাথে সাথে ওয়েস্টার্ন পোশাকও যুক্ত হয়েছে। বিশেষ করে নতুন প্রজন্মের কাছে ওয়েস্টার্ন পোশাকের চাহিদা বেশি। আর শীত এলে তরুণ-তরুণীদের পরনে দেখা যায় বাহারি ডিজাইনের ওয়েস্টার্ন পোশাক। শীতের ওয়েস্টার্ন পোশাক নিয়ে আমাদের এবারের আয়োজন।

ওয়েস্টার্ন পোশাক ফ্যাশনের আধুনিকতার জন্যই জায়গা করে নিয়েছে বিশ্বব্যাপী। বর্তমান ট্রেন্ডে দেশীয় ঐতিহ্যবাহী পোশাক থেকে শুরু করে ওয়েস্টার্ন পোশাকও আছে তরুণ-তরুণীদের পছন্দের তালিকায়। যারা ফ্যাশন-সচেতন, তাদের কাছে দেশীয় পোশাক যেমন পছন্দের একইসঙ্গে তারা পছন্দ করেন ওয়েস্টার্ন পোশাক। কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া তরুণ-তরুণী থেকে শুরু করে এক্সিকিউটিভ লেভেলের নারী-পুরুষরাও আজকাল ওয়েস্টার্ন পোশাক পরছেন। কিন্তু অনেকেই জানেন না ওয়েস্টার্ন পোশাক পরলেই কেবল ফ্যাশন-সচেতন হওয়া যায় না। কেননা ওয়েস্টার্ন পোশাকের সঙ্গে ওয়েস্টার্ন লুকটাও খুব জরুরি। নর্থ সাউথ ইউনিভার্সির দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী নিশা। তিনি শীতে দেশীয় পোশাকের চেয়ে ওয়েস্টার্ন পোশাক পরতেই বেশি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। তার ভাষ্যে, ‘শীতে সালোয়ার-কামিজের চেয়ে ওয়েস্টার্ন পোশাক পরতেই আমি পছন্দ করি। আর ওয়েস্টার্ন পোশাকে যেমন সহজেই শীত মানে, তেমনি ফ্যাশনটাও ঠিক থাকে।

rupcare_winter-western3 শীতে ওয়েস্টার্ন ড্রেসের ভিন্ন আমেজশীতের সময় ফ্যাশনে অনেক বড় ভূমিকা রাখে টুপি। পুরো স্টাইলকে যেন পাল্টে দেয়। আবার অনেকের পছন্দ টুপির চেয়ে মাফলার বেশি মানানসই। পছন্দ ভিন্ন হলেও শীতের ফ্যাশনে ভিন্নমাত্রা যোগ করে মাফলার।’ অবশ্য মাফলারের ব্যবহার অনেক আগে থেকেই। শীত এলেই একটি মোটা উলের কাপড় দিয়ে মুখমণ্ডল ও গলা পেঁচিয়ে রাখতে দেখা যেত। তখন শুধু শীতের হাত থেকে বাঁচতে এর ব্যবহার ছিল। কিন্তু বর্তমান সময়ে এ যেন নিয়েছে ভিন্নরূপ। পরিণত হয়েছে শীতের স্টাইলের নতুন মাত্রা। ওয়েস্টার্ন পোশাকে আপনার ফ্যাশন কেমন হবে তা নির্ভর করে ড্রেসকোডের ওপর। যেমন—অফিসিয়াল লুকে কোট-প্যান্ট থাকলে তার সঙ্গে মানিয়ে একই কালারের মাফলার পরতে পারেন। ছেলেদের ক্ষেত্রেও একইভাবে অফিসিয়াল লুকে পরতে পারেন এক্সেসরিজ। তবে টুপির ব্যাপারে একটু সতর্ক থাকতে হবে। মাফলারও পরতে পারেন ভিন্ন স্টাইলে। ছোট ধরনের কতগুলো মাফলার পাওয়া যায়, সেগুলো গলায় পেঁচিয়ে তার ওপর শার্ট পরতে পারেন। তরুণদের চাহিদার কথা বিবেচনা করে দেশি ব্র্যান্ডগুলো তৈরি করছে উন্নতমানের মাফলার ও টুপি। অন্যদিকে মেয়েদের মাফলার সম্পূর্ণ ভিন্নভাবে করা হয়েছে। উলের ব্যবহার দেখার মতো। উল দিয়েই করা হয়েছে বিভিন্ন ফুল। তেমনি ক্যাপে আনা হয়েছে ওয়েস্টার্ন লুক। আপনার পছন্দের ওয়েস্টার্ন পোশাক কিনতে যেতে পারেন এক্সটেসি, ক্যাটস আই, আলফোসি, ট্রেন্জ, ইয়ালো, জেন্টাল পার্ক, ইনফিনিটিসহ বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসে।

Advertisements

ওয়েস্টার্ন ড্রেসের সঙ্গে সাজসজ্জা হতে হবে একদমই বুঝেশুনে। কিন্তু সাজের আগে ওয়েস্টার্ন ড্রেস সম্পর্কে জানা দরকার। ওয়েস্টার্ন ড্রেস দুই ধরনের হয়। ক্যাজুয়াল ও ফর্মাল। ক্যাজুয়াল ড্রেস আর ফর্মাল ড্রেসের সাজ অবশ্যই ভিন্ন ধরনের হবে। ফর্মাল প্যান্ট-শার্ট পরলে সাজগোজ হবে একদমই সীমিত। হালকা মেকআপের সঙ্গে হালকা অর্নামেন্টস। ক্যাজুয়াল প্যান্টের সঙ্গে ফতুয়া বা টপস পরলে কানে বড় দুল ও হাতে মোটা চুড়ি পরতে পারেন। ক্যাজুয়াল শার্টের সঙ্গে বড় মালা ভালো লাগবে। এ ধরনের ড্রেসে ছোট গয়না ভালো লাগবে না। সবচেয়ে মানানসই হলো মাটির গয়না। প্যান্টের সঙ্গে টিশার্ট পরলে কানে ও গলার গয়না নির্ভর করে টি-শার্টের গলার ধরনের ওপর। হাই নেক টিশার্টে গলা আড়ালে থাকে বলে গয়না পরা যায় না। লো নেক টিশার্টে গলায় লকেট পরতে পারেন। কিন্তু টি-শার্টে অনেক কাজ করা থাকলে গলায় কিছু না পরাই ভালো। এর সঙ্গে টিপ পরতে পারেন কালার দিয়ে। তবে ড্রেসের রঙের সঙ্গে মানানসই টিপ পরা উচিত।

ফর্মাল ড্রেস রাতে পরলে প্যান্ট-শার্টের ক্ষেত্রে চুল খোলা রাখাটাই বাঞ্ছনীয়। এখন যেহেতু শীত, তাই টিশার্ট বা টপসের সঙ্গে মানিয়ে পরতে পারেন লেদারের জ্যাকেট। অথবা অন্য ধরনের জ্যাকেট এবং প্যান্টের সঙ্গে মিলিয়ে পরতে পারেন ভিন্ন ডিজাইনের জুতাও। ওয়েস্টার্ন ড্রেসের সঙ্গে ফুল কোনোভাবেই যায় না। ফর্মাল বা ক্যাজুয়াল ড্রেস যাই হোক না কেন, ড্রেসের ধরনের পাশাপাশি মেকআপ হতে হবে দিন-রাতের ওপর নির্ভর করে। দিনের বেলায় ক্যাজুয়াল ড্রেসের মেকআপ খুব সাদামাটা হওয়া চাই। তাই বলে ফ্যাকাশে ধরনের নয়। হালকা সাজের মধ্যে পাউডার-কাজল ব্যবহার করতে পারেন। ঠোঁটে হালকা গোলাপি বা বাদামি গ্লস লাগাতে পারেন। ম্যাট লিপস্টিকও লাগাতে পারেন। ফর্মাল পোশাক পরলে মেকআপে একটা মিশ্রভাব থাকতে হবে। প্রথমে ফাউন্ডেশন দিন। তৈলাক্ত ত্বকে ম্যাট আর শুষ্ক ত্বকে অয়েল বেজড ফাউন্ডেশন দিন। আইশ্যাডো ব্যবহার করতে হলে মোটা করে আইলাইনার দিতে পারেন। তবে এটা রাতের বেলায় করবেন। আর দিনের বেলায় চুল খোলা রাখলে ভালো লাগবে। জুতা না স্যান্ডেল পরবেন তা নির্ভর করবে ড্রেসের ধরনের ওপর।

তথ্যসূত্র: ইত্তেফাক/কড়চা

শীতের ওয়েস্টার্ন ফ্যাশনের একাংশ:

Advertisements

Check Also

নিয়মিত হাই হিল পরলে কী হয়?

হাই হিল ফ্যাশনপ্রেমীদের কাছে বেশ প্রিয়। আবার বিশ্বের নামীদামী মডেল-অভিনেত্রীদেরও হাই হিলেই অভ্যস্ত দেখা যায়। …