বিয়ের পিঁড়িতে ক্রিকেটার আবু হায়দার রনি

আচমকা কোনো আগমন নয়, এমনকি হুট করে আবির্ভাবও ঘটেনি। অনেক পরীক্ষা দিয়ে, নানা চড়াই-উতরাই পেরিয়ে তবেই নিজেকে চেনাচ্ছেন আবু হায়দার রনি। নিজেকে প্রস্তুত করছেন জাতীয় দলের নির্ভরযোগ্য একজন পেসার হিসেবে। ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ে সিরিজ চলাকালীন এই তরুণ তুর্কী বসছেন বিয়ের পিঁড়িতে।

পাত্রী দীর্ঘদিনের বান্ধবী সাদিয়া প্রমা। তিনি বিজেএমই ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন অ্যান্ড টেকনোলজিতে ফ্যাশন ডিজাইনিংয়ে অধ্যয়নরত। বাঁহাতি পেসার রনির সঙ্গে প্রমার সম্পর্কটা দীর্ঘ সাড়ে ছয় বছরের। এতদিনের প্রণয় অবশেষে রূপ নিচ্ছে পরিণতিতে। দুই পরিবারের সম্মতিতেই আগামী ১৫ নভেম্বর বিয়ে করছেন এই জুটি।

বিষয়টি প্রিয়.কমকে নিশ্চিত করেছেন আবু হায়দার রনি নিজেই। এ নিয়ে প্রিয়.কমকে বাঁহাতি এই পেসার বলেন, ‘সাড়ে ছয় বছরের বেশি সময় ধরে সম্পর্ক। পারিবারিকভাবেই পরিণতি পেয়েছে। জিম্বাবুয়ে সিরিজ শেষে একটু ছুটি পেয়েছি। এই সুযোগেই শুভ কাজটা হচ্ছে। ১৫ তারিখ বিয়ে পড়ানো হবে। আর ১৬ তারিখ শ্যামলিতে হবে অনুষ্ঠান।’

১১ নভেম্বর, রবিবার অনুষ্ঠিত হয়েছে তাদের গায়ে হলুদ। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে নিজের আইডিতে রনি-প্রমা দুজনই হলুদের ছবি পোস্ট করেছেন। আত্মীয়-স্বজন-ভক্ত-সমর্থকরা সেখানে শুভকামনা জানান এই জুটিকে।

বয়সভিত্তিক ক্রিকেটে এই তরুণ পেসার নিজেকে চেনান ২০১২ সালের মালেশিয়ায় অনুষ্ঠিত এসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ টুর্নামেন্টে। মাত্র ১০ রানের বিনিময়ে ৫.৪ ওভার বল করে ঝুলিতে পুরেছিলেন ৯ উইকেট। বিস্ময়ের ঝাঁপি খুলে দেওয়া এই বাঁহাতি উঠতি পেসার সুযোগ পেয়ে যান বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) তৃতীয় আসরে।

ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক এই টুর্নামেন্টে নিজের সবটুকু উজার করে দিয়েই খেলেন নেত্রকোনার এই পেসার। অপরিচিত মুখটা দেশ থেকে পুরো ক্রিকেট বিশ্বেই নিমিষে হয়ে উঠলো পরিচিত মুখ। ১২ ম্যাচে ২০ উইকেট নিয়ে ওই আসরের দ্বিতীয় সর্বাধিক উইকেট শিকারী রনি মোস্ট ভ্যালুয়েবল ক্রিকেটার হিসেবে পুরস্কারও পান।

বিপিএলে বাজিমাত করা এই পেসার ডাক পান বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলেও। ২০১৬ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে অভিষেক হয় রনির। ইতোমধ্যে তার নামের পাশে লেখা রয়েছে ১০টি টি-টোয়েন্টি। এশিয়া কাপের অদ্ভুতুড়ে সুচির বদৌলতে অভিষেক ঘটে ওয়ানডে ফরম্যাটেও।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশের ১২৬তম খেলোয়াড় হিসেবে অভিষেক হয় তার। সর্বশেষ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তৃতীয় ওয়ানডেতে মাঠে নেমেছিলেন রনি। সফরকারীদের হোয়াইটওয়াশ করার ম্যাচে ঝুলিতে পুরেছিলেনে একটি উইকেটও। ডিসেম্বরে উইন্ডিজ সিরিজ। মাঝের এই সময়টা ছুটি পেয়েছেন এই ক্রিকেটার।

এই ছুটির সময়টা কাজে লাগাতেই কিনা বিয়ের পিঁড়িতে বসছেন ২২ বছর বয়সী এই পেসার। হোম অব ক্রিকেটে চলমান বাংলাদেশ ও জিম্বাবুয়ের মধ্যকার দ্বিতীয় টেস্টটি শেষ হবে ১৫ নভেম্বর। পর দিন অনুষ্ঠিত হবে রনি-প্রমার রিসিপশন। বাঁহাতি এই পেসার জানিয়েছেন, টেস্ট শেষে বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন ক্রিকেটার ও সতীর্থরা।

Check Also

বাংলাদেশ অবিশ্বাস্য খেলছে, সেমিতে উঠলে অবাক হবো না: কোহলি

স্কোরেবোর্ডে লড়াই করার মতো পুঁজি ছিল না। ভালো সংগ্রহ এনে দিতে পারেননি ব্যাটসম্যানরা। অধিকন্তু উইকেটে …