বিশেষ দিনের নতুন ৫ পদের হালুয়া

|রূপ-কেয়ার ডেস্ক|

শবে-বরাত নিয়ে মতবিরোধ থাকতে পারে। কিন্তু আমরা এটিকে ভাগ্য নির্ধারণের রজনী হিসাবেই জানি। একটি দিনে মানুষ যদি একটু বেশি ইবাদত বন্দেগী আর বিশেষ খাবারের আয়োজন করে নিজের পরিবার ও গরীব দু:খীদের মাঝে বিলিয়ে দিতে চায়, তাহলে কোন ক্ষতি হবে বলে আমাদের মনে হয় না। আসুন এই বিশেষ আয়োজনের অংশ হিসাবে নতুন ৫ রকমের হালুয়ার রেসিপি জেনে নিই।

ডাবল রুটিকা হালুয়া

উপকরণ

গুঁড়া দুধ ১ কাপ, ভাজা পাউরুটি ২ কাপ, ঘি ১ কাপ, পানি ২ কাপ, চিনি ১ কাপ, এলাচ গুঁড়া আধা চা চামচ, পেস্তা বাদাম কুচি ১ টেবিল চামচ, কিশমিশ ১ টেবিল চামচ, কাঠবাদাম কুচি ১ টেবিল চামচ, খাবার রং বা কোকো পাউডার ২ টেবিল চামচ।

যেভাবে তৈরি করবেন

১. পাউরুটির স্লাইস আধা কাপ ঘিয়ে ভেজে হাত দিয়ে ভেঙে গুঁড়া করে ২ কাপ নিন।

২. একটি পাত্রে ১ কাপ গুঁড়া দুধ, ২ কাপ পানি ও ১ কাপ চিনি দিয়ে জ্বাল দিন।

৩. দুধ ফুটে উঠলে পাউরুটির গুঁড়া দিয়ে দিন। পছন্দমতো খাবার রং বা ২ টেবিল চামচ কোকো পাউডার দিন। খাবার রং না দিলেও সমস্যা নেই।

৪. কোয়াটার কাপ ঘি দিয়ে অনবরত নাড়ুন। আঠালো হয়ে এলে বাকি ঘি দিয়ে নেড়ে মিশিয়ে নামিয়ে নিন।

৫. প্লেটে ঢেলে সমান করে বিছিয়ে ঠাণ্ডা করে কেটে ওপরে কিশমিশ, পেস্তা ও কাঠবাদাম কুচি দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করুন।

খেজুর-বাদামের হালুয়া

উপকরণ

খেজুর ২৫০ গ্রাম, চিনি ১ কাপ, কাঠবাদাম বাটা দেড় কাপ, কাঠবাদাম কুচি ১ টেবিল চামচ, তরল দুধ ২ কাপ, ঘি কোয়াটার কাপ, কেওড়া পানি আধা চা চামচ, গোলাপজল আধা চা চামচ।

যেভাবে তৈরি করবেন

১. খেজুর ধুয়ে বিচি ছাড়িয়ে ১ কাপ তরল দুধে ভিজিয়ে রাখুন ৩০ মিনিট।

২. এবার হাত দিয়ে চটকে বা ব্লেন্ড করে নিন।

৩. ননস্টিক প্যানে দুধে ভেজানো খেজুর, বাদাম বাটা দিয়ে রান্না করুন।

৪. খেজুর ঘন হয়ে গেলে চিনি ও ঘি দিয়ে অনবরত নাড়তে থাকুন। ননস্টিক প্যানের গা থেকে হালুয়া আলগা হয়ে এলে গোলাপ ও কেওড়া পানি দিয়ে নেড়ে নামিয়ে নিন।

৫. প্লেটে হালুয়া ঢেলে সমান করে দিন। ওপরে বাদাম কুচি ছড়িয়ে ঠাণ্ডা হলে পছন্দমতো টুকরো করে পরিবেশন করুন।

নেশেস্তার হালুয়া

উপকরণ

সুজি ৫০০ গ্রাম, পানি দেড় লিটার, চিনি ৮০০ গ্রাম, ঘি ১ কাপের ৪ ভাগের ৩ ভাগ, এলাচ ৩টি, দারুচিনি ২ টুকরা, কেওড়া পানি ১ চা চামচ, গোলাপজল ১ চা চামচ, সবুজ রং সামান্য, সাজানোর জন্য তবক, বাদাম কুচি ২ টেবিল চামচ।

যেভাবে তৈরি করবেন

১. অর্ধেক পানি দিয়ে সুজি ভিজিয়ে রাখুন ৮ ঘণ্টা।

২. সুজি হাত দিয়ে ভালোভাবে কচলে পাতলা সুতি কাপড় দিয়ে ছেঁকে নিন। সুজির যে পাতলা মাড় বের হবে তা আবার পাতলা সুতি কাপড় দিয়ে ছেঁকে নিন। এই মাড়টুকুই নেশেস্তা।

৩. একটি হাড়িতে এক কাপের চার ভাগের এক ভাগ ঘি গরম করে থেঁতো করে রাখা এলাচ, দারুচিনি দিয়ে নেড়ে চিনি ও এক কাপের চার ভাগের এক কাপ পানি দিন।

৪. চিনি গলে গেলে নেশেস্তা, গোলাপজল ও কেওড়া পানি ও রং দিয়ে অনবরত নাড়তে থাকুন। মৃদু আঁচে রান্না করুন।

৪. হালুয়া ঘন হয়ে এলে ১ টেবিল চামচ ঘি রেখে বাকিটা দিয়ে দিন। নাড়তে থাকুন। যখন হালুয়া প্যানের গা থেকে আলগা হয়ে আসবে তখন নামিয়ে নিন।

৫. একটি প্লেটে ১ টেবিল চামচ ঘি মেখে গরম হালুয়া সঙ্গে সঙ্গে ঢেলে সমান করে দিন। ঠাণ্ডা হলে কেটে তবক ও বাদাম কুচি দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করুন।

নারিকেল আর জিলাপিকা হালুয়া

উপকরণ

জিলাপি ১ কাপ, চিনি ১ কাপ, গুঁড়া দুধ ১ কাপ, নারিকেল বাটা ১ কাপ, মাওয়া আধা কাপ, এলাচ গুঁড়া আধা চা চামচ, পানি ১ কাপ, ঘি আধা কাপ, কিশমিশ ১ টেবিল চামচ, পেস্তা কুচি ১ টেবিল চামচ।

যেভাবে তৈরি করবেন

১. জিলাপি হাত দিয়ে ভেঙে গুঁড়া করে নিন।

২. ননস্টিক প্যানে ৩ টেবিল চামচ ঘি, নারিকেল বাটা এবং জিলাপি গুঁড়া দিয়ে নাড়ুন।

৩. অন্য একটি সসপ্যানে দুধ, চিনি, পানি, এলাচ গুঁড়া, মাওয়া দিয়ে জ্বাল দিন।

৪. জিলাপির মিশ্রণ আঠালো হয়ে এলে দুধের মিশ্রণ ঢেলে দিন। অনবরত নেড়ে রান্না করুন।

৫. আঠালো হয়ে এলে অবশিষ্ট ঘি দিয়ে দিন। নেড়ে মিশিয়ে নিন। আঠালো হলে নামিয়ে নিন।

৬. ১ টেবিল চামচ ঘিয়ে কিশমিশ, পেস্তা কুচি ভেজে নিন।

৭. প্লেটে হালুয়া ঢেলে সমান করে বিছিয়ে ঘিয়ে ভাজা কিশমিশ, পেস্তা কুচি ছড়িয়ে পরিবেশন করুন ভিন্ন স্বাদের এই হালুয়া।

বি. দ্র: পছন্দমতো ফুড কালার ব্যবহার করতে পারেন।

সুজির রেইনবো হালুয়া

উপকরণ

সুজি দেড় কাপ, চিনি দেড় কাপ, পানি ৩ কাপ, ঘি আধা কাপ, বিভিন্ন রকমের খাবার রং সামান্য, এলাচ ৪টি, দারুচিনি ১ ইঞ্চি ২ টুকরো।

যেভাবে তৈরি করবেন

১. ননস্টিক প্যানে ঘি, এলাচ, দারুচিনি ও সুজি ভাজুন।

২. সুজি ভেজে সুগন্ধ বের হলে পানি দিন এবং অনবরত নাড়তে থাকুন।

৩. সুজি ফুলে উঠলে চিনি দিয়ে নেড়ে রান্না করুন। ঘন হলে নামিয়ে নিন।

৪. রান্না করা সুজি কয়েক ভাগ করে নিন। এক ভাগ সাদা রেখে বাকিগুলোতে পছন্দমতো লাল, সবুজ, হলুদ ও কমলা রং মেশান।

৫. ডাবল পলিথিন নিন। একটা পলিথিনের ওপর প্রথমে সাদা হালুয়া বিছিয়ে পর্যায়ক্রমে সবগুলো রঙের হালুয়া একের পর এক দিন।

৬. ওপরে আরেকটি পলিথিন দিয়ে বেলে নিন। এবার মুড়ে রোল করে কাটুন। সাজিয়ে পরিবেশন করুন।

তথ্যসূত্র: কালেরকণ্ঠ

Check Also

পূজার রেসিপি : নারিকেলের তক্তি

পূজার বাদ্য বেজে উঠেছে। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব দূর্গাপূজা। এসময় নানা সুস্বাদু খাবার …