গর্ভধারণের প্রাথমিক পর্যায়ে যেসব ব্যপারে সতর্ক থাকা উচিত

amitumi_pregnancy cautions

মাত্রই হয়তো জানতে পেরেছেন জীবনে পরম আকাঙ্ক্ষিত সন্তানের আগমনী বার্তা। মাত্রই হয়তো অনুভব করতে শুরু করেছেন নিজের মাঝে অপর একটি প্রাণের অস্তিত্ব। খুশিতে মনটা ভরে আছে নিশ্চয়ই? কিন্তু হ্যাঁ, একই সাথে আছে ভয়-আশঙ্কা। কী করবেন, কী করবেন না, কোনটা সন্তানের জন্য ভালো আর কোনটা সন্তানের জন্য মন্দ- এইসব নানান ভাবনা মনে উঁকি দিয়ে যাচ্ছে নিশ্চয়ই? আর সেটাই স্বাভাবিক।

গর্ভধারণ এক বিশাল দায়িত্ব। এমন এক দায়িত্ব যা পালন করতে হয় ভীষণ সতর্কতার সাথে। গর্ভধারণের একদম প্রাথমিক পর্যায়ে, যেমন কয়েক সপ্তাহ বা মাসের সময়ে বাচ্চা নষ্ট হয়ে যাওয়া বিচিত্র কিছুই নয়। গর্ভের সন্তান বড় হওয়ার সাথে সাথে যেমন নানান রকমের সাবধানতা অবলম্বন করতে হয়, ঠিক একই রকম সতর্কতা পালন করা উচিত গর্ভধারণের শুরুতেও। অনেকেই বিষয়টিকে গুরুত্ব দেন না, আর তার মাসুল গুণতে হয় সন্তানকে হারানোর মধ্য দিয়ে।

তাহলে কী করবেন? আসুন জানা যাক।

নড়াচড়ায় সাবধানতা-
সবচাইতে জরুরী এই বিষয়টিই। গর্ভধারণের সংবাদ নিশ্চিত হওয়া মাত্র নিজের শারীরিক পরিশ্রম, চলাফেরা ইত্যাদি বিষয়কে একদমই নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসুন। ভারি কোন কাজ একদম করবেন না, কিছুদিনের জন্য বন্ধ করে দিন সব। যারা বাসে বা মোটর বাইকে চড়েন, তারাও অত্যন্ত সতর্ক থাকবেন। খুব ভালো হয় বাস, রিকশা, বাইক এসব বাহন এড়িয়ে চলতে। ভালো হয় কিছুদিন বাসায় বিশ্রাম নিলে। একান্তই না পারলে গাড়ি, ট্যাক্সি, সি এনজি তে চলাচল করুন। সিঁড়ি ভেঙে ওঠানামা করবেন না। যারা ব্যায়াম করেন তাঁরা কিছুদিন বন্ধ রাখুন এসব। ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে তবেই আবার শুরু করুন ব্যায়াম।

খাওয়া দাওয়া-
হ্যাঁ, খাওয়া দাওয়াটাও ভীষণ জরুরী। এই সময়ে আপনার নানান উদ্ভট খাবার খেতে ইচ্ছা করবে সত্যি, কিন্তু নিজেকে একটু কষ্ট দিয়ে হলেও সেগুলো খাবেন না। এমন কোন খাবার খাবেন না যাতে পেতে গ্যাস হয়। একই সাথে খুব বেশি টক খাবার যেমন আনারস, লেবু ইত্যাদি একদম এড়িয়ে চলবেন। শুধু তাই নয়, চা, কফি ইত্যাদি ক্যাফেইন জাতীয় পানীয় এড়িয়ে জান একদম। কারণ এই পানীয়গুলো আপনার শরীরে তৈরি করবে পানিশূন্যতাসহ নানান রকমের মানসিক উপসর্গ।

এড়িয়ে চলুন তাপমাত্রার পরিবর্তন-
খেয়াল রাখবেন আপনার যেন খুব ঠাণ্ডা বা গরম না লাগে। ঠাণ্ডা-গরমের সমস্যা থাকে জ্বর, সর্দি ইত্যাদি রোগ হতে পারে। ফলে নিজেকে বাঁচিয়ে রাখুন। পান করুন প্রচুর পরিমাণে পানি ও মৌসুমি ফলমূল যা আপনাকে এসব রোগ থেকে দূরে রাখবে। স্টিম বাথ, সনা বাথ ইত্যাদি পুরোপুরি এড়িয়ে চলুন। এসবে যে তাপমাত্রা ব্যবহার করা হয় সেগুলো আপনার সন্তানের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।

সূত্র: প্রিয় লাইফ

Check Also

ঘুমের সময় মেয়েদের অন্তর্বাস পরা কি জরুরি?

ঘুমের সময় পোশাকটি কেমন হবে তা নিয়ে চিন্তিত থাকেন বেশিরভাগ নারী। কারণ আঁটসাঁট পোশাক পরলে …