প্রিয়জনের বিষণ্ণতা দূর করতে আপনার যে ৭টি কথা ওষুধের কাজ করবে

amitumi_depression treatment

বিষণ্নতা অনেকটা ব্ল্যাকহোলের মতো, জীবনের যত সুখ-আনন্দ গ্রাস করে নেয়। এই অসুরের আগ্রাসনে দৈহিক ও মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে মানুষ। একই সঙ্গে বিষণ্ণতার ওপর ভর করে আসে একাকিত্ব। ইউনিভার্সিটি অব মিশিগানের সাইকিয়াট্রি বিভাগের প্রধান গ্রেগরি ডালাকের মতে, একজন বিষণ্ন মানুষকে একমাত্র তার প্রিয়জনই সহজে স্বাভাবিক করে তুলতে পারে।

বিষণ্নতা এমন এক যুদ্ধ, যেখান থেকে স্বাধীনতা পাওয়া এত সোজা নয়, জানান গ্রেগরি। একজন শুভাকাঙ্ক্ষী হিসেবে বিষণ্ন মানুষটিকে সহজ করে তোলার উপায় জানা তাই আপনার জন্যও জরুরি। আপনার কিছু অর্থপূর্ণ মুখের কথাই এ অসুখে ওষুধের কাজ করতে পারে। মনোবিশেষজ্ঞরা এখানে আপনাকে সাতটি কথা বলার পরামর্শ দিয়েছেন, যার ব্যবহার প্রিয়জনকে বিষণ্নতার কালো ছায়া থেকে বের করে আনার উপায় হতে পারে।

১. এখানে আমি তোমার জন্যই আছি
কিছু সময় সামান্য একটা বাক্যই বিশাল উপলব্ধির জন্ম দিতে পারে। একাকী বিষণ্ন একজন মানুষ যদি আপনাকে কাছে পায়, তাহলে সব অন্ধকার ঘুচে যেতে পারে। আপনার এই কথায় বন্ধুত্ব ও সাহসের ইঙ্গিত থাকতে হবে, জানান ডালাক। এ ছাড়াও তাকে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া, ওষুধপত্র খাওয়ানো থেকে শুরু করে অন্যান্য ক্ষেত্রেও দেখভালের মাধ্যমে তার পাশে থাকতে পারেন।

২. তুমি একা নও
মানুষটি একটা অন্ধকার টানেলের মধ্য দিয়ে ক্রমশ আরো অমানিশার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে- বিষণ্নতাবোধের চিত্রটি এমন হতে পারে। এ সময় প্রিয়জনকে এই যাত্রাপথের সহযাত্রী হিসেবে পেলে তার ভালো লাগবে। এ পরামর্শ দেন জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের সাইকিয়াট্রি ও নিউরোলজি বিভাগের অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর অ্যাডাম কাপলিন। তিনি জানান, এই অন্ধকার পথে সে যদি পাশে আপনাকে পায়, তবে অজানা পথের ভয় ঘোর থেকে বেরিয়ে আসতে পারে বিষণ্ন মানুষটি।

৩. এটা তোমার ভুল নয়
ডালাক বলেন, বিষণ্ন মানুষটিকে বোঝাতে হবে, যা ঘটেছে তার জন্য সে দায়ী নয়। কোনো ঘটনায় নিজেকে জড়িয়ে মানুষটি হয়তো বিষণ্ন হয়ে পড়েছে। নিজের দায়িত্বহীনতার কারণে এমনটি ঘটেছে বলে মনে করতে পারে সে। হয়তো গভীর অনুতাপ থেকে বিষণ্ন হয়ে পড়েছে সে। এ ক্ষেত্রে আপনার একমাত্র লক্ষ্য হবে, যে দোষের ভার নিজের ঘাড়ে চাপিয়েছে তা থেকে মানুষটিকে মুক্তি দেওয়া। তার আসল সমস্যা মস্তিষ্কে। এই প্রভাব ছড়িয়ে পড়ে গোটা দেহে। তার মধ্যে আপনার এমন বোধের জন্ম দিতে হবে যে, দোষ আসলে তার নয়। সে হয়তো যুক্তি দিয়ে তার দোষ প্রমাণ করবে। কিন্তু আপনার কাজ হবে পাল্টা যুক্তির মাধ্যমে তাকে ভুল প্রমাণ করা।

৪. আমি তোমার সঙ্গে যাব
যদি রোগী কোনো থেরাপি বা চিকিৎসার প্রয়োজনে কোথাও নিয়মিত যায়, তবে আপনি তার সঙ্গী হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করুন। এক রাতে বিষণ্নতা থেকে মুক্তি না মিললেও প্রিয়জনকে নিজের পাশে পেলে মানুষটি অনেক সহজ বোধ করবে। তাই তার পথের সঙ্গী হিসেবে নিজেকে দাঁড় করান।

৫. আমি তোমার জন্য কী করতে পারি?
সহযোগিতাপূর্ণ হাত বাড়িয়ে দেওয়ার আরেকটি উপায় এমন একটি কথা। আপনি তার জন্য কিছু করতে চান এবং যেকোনো কিছু করতে প্রস্তুত- এমন কথায় বিষণ্ন প্রিয়জন তার হারানো শক্তি ও সাহস ফিরে পেতে শুরু করবে। এ মানুষটির দৈনন্দিন ভারসাম্যপূর্ণ কাজ, খাওয়া, ঘুম ইত্যাদি যাবতীয় কাজের সাহায্যে আপনার এগিয়ে আসা তাকেও স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে উৎসাহ জোগাবে বলে জানান কাপলিন।

৬. তুমি কী ধরনের চিন্তা করছ?
সমস্যায় পর্যুদস্ত মানুষটির পাশে দাঁড়াতে হলে তার চিন্তাভাবনা সম্পর্কে আপনার পরিষ্কার ধারণা প্রয়োজন। মানুষটি কী চিন্তা করছে তা জানতে চান তার কাছে। এমন হতে পারে- তার বিষণ্নতার পেছনে একটিমাত্র জটিল ও কুটিল চিন্তাই দায়ী। আসল সমস্যা ধরতে পারা আপনার জন্যও জরুরি। তাই জিজ্ঞাসা করতে অস্বস্তিবোধ করবেন না। এতে বরং তিনি আপনার কাছে সমস্যার কথা খুলে বলতে শুরু করবে। ফলে অনেক চাপমুক্ত বোধ করবে সে। তার চিন্তার বিপরীতে নানা পথের সন্ধান দিন। মানুষটি হয়তো এমন একটি পথকে একমাত্র পথ মনে করে বসে আছে, যা তাকে বিষণ্ন করে তুলেছে।

৭. এটা কিছুই না
বিষণ্ন কারো পাশে আপনার অস্তিত্ব এবং সান্ত্বনার দু-একটি কথাই তাকে প্রফুল্ল করে তুলবে। যত সমস্যার বয়ানই করুক না সে, তার সব সমস্যা এক তুরুপে উড়িয়ে দিন। এতে তার কাছেও মনে হবে, হয়তো এ সমস্যা কোনো সমস্যাই নয়। আপনার এসব কথার ভঙ্গি ও আচরণে সামঞ্জস্য থাকতে হবে। যে পরিস্থিতি তাকে বিষণ্ন করে তুলেছে তা যে আদতে কোনো ঘটনাই নয়, এমন বোধ তার মধ্যে প্রোথিত করতে পারলেই আপনি জয়ী। এই একটি কথাতেই প্রিয়জন অনেকটা সুস্থ ও স্বাভাবিক হয়ে উঠতে পারে।

সূত্র: কালেরকণ্ঠ

Check Also

পরকীয়ার শিকার হচ্ছেন না তো আপনি?

আপনি ভাবছেন আপনার জীবনসঙ্গী খুবই ভালো মানুষ, তিনি আপনার সঙ্গে খুবই ভালো আচরণ করেন, তার …