সঙ্গীকে বলা যায় না যে পাঁচটি কথা

amitumi_couple

সম্পর্কের ক্ষেত্রে একে অন্যকে অনেক জিনিসই শেয়র করা বা বিনিময় করা যায়। কিন্তু কিছু বিষয় আছে, যা ‘অপ্রিয়’ বিষয় হিসেবে পরিচিত। এসব বিষয় উত্থাপন করা হলে তা অন্যের বিরক্তির সৃষ্টি করে। আর সম্পর্কের ক্ষেত্রেও তা ভালো কিছু বয়ে আনে না। এমন ধরনের কিছু বিষয় তুলে ধরেছেন ডেটিং এক্সপার্ট কেজিয়া নোবল। এক প্রতিবেদন বিষয়টি তুলে ধরেছে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।

১. আমার ‘প্রাক্তন’ এমন…

আপনার অতীতে অন্য একজনের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল। এখন তার সঙ্গে নেই। কিন্তু আপনি তার স্মৃতি বহন করে চলেছেন, এমনটা মোটেই ভালো লক্ষণ নয়। তার বদলে অতীতকে ঝেড়ে ফেলে দিন। তার কথা উত্থাপন করা মানে আপনার অতীতের ক্ষত নতুন করে খোঁচানো। এ ছাড়াও এটি নতুন সঙ্গীর বিরক্তের কারণ হতে পারে। তার ধারণা হতে পারে এখনও আপনি তাকে ভালোবাসেন কিংবা আপনার সারা মন জুড়ে রয়েছে তার স্মৃতি।

২. সব কথা খুলে বলতে হবে

আপনার সঙ্গীর সব কথা শুনতে চাওয়া দোষের কিছু নয়। কিন্তু এজন্য অতিরিক্ত চাপাচাপি করা কিংবা বাধ্যতামূলক একটা বিষয় আরোপ করা নিঃসন্দেহে বিরক্তিকর। তার বদলে এক পর্যায়ে উল্লেখ করতে ভুলবেন না যে, বিষয়টি বাধ্যতামূলক নয়।

৩. মেয়েটির দিকে/ ছেলেটির দিকে তাকালে কেন?

আশপাশের ছেলে বা মেয়ের দিকে মানুষ তাকাবে এটাই স্বাভাবিক। তবে এসব বিষয় নিয়ে কঠোরতা কোনো ভালো ফলাফল আনে না।

৪. ‘তোমার যা পছন্দ’

ধরুন আপনার সঙ্গী আপনার কাছে জিজ্ঞাসা করল, কোথায় যাওয়া যেতে পারে। এক্ষেত্রে বিষয়টি ‘তোমার যা পছন্দ’ বলে সম্পূর্ণভাবে তার ওপর ছেড়ে দেওয়ার প্রয়োজন নেই। কারণ প্রশ্নটা আপনার মূল্যবান মতামতের জন্যই করা হয়েছে। এক্ষেত্রে কোনো পছন্দ নেই বললে তা নিঃসন্দেহে আলোচনার সুযোগ হাতছাড়া করে।

৫. তোমার এ পোশাক পরা উচিত

সঙ্গীর পোশাক সম্বন্ধে অনেকেরই অতিরিক্ত মাথা ঘামানোর অভ্যাস রয়েছে। এ বিষয়টি বাড়াবাড়ি পর্যায়ে চলে গেলে তা বিরক্তির কারণ হতে পারে। তাই এসব বিষয় নিয়ে বাড়াবাড়ি না করাই ভালো।

সূত্র :কালের কণ্ঠ

Check Also

পরকীয়ার শিকার হচ্ছেন না তো আপনি?

আপনি ভাবছেন আপনার জীবনসঙ্গী খুবই ভালো মানুষ, তিনি আপনার সঙ্গে খুবই ভালো আচরণ করেন, তার …