৬ টি লক্ষণে বুঝে নিন আপনার প্রেমিকটি সঠিক জীবনসঙ্গী কিনা

amitumi_bad relationship

নিজের জন্য সঠিক জীবনসঙ্গী খোঁজার মতো কঠিন আর কিছুই নেই। বর্তমান যুগে সকলেই চান নিজের পছন্দেই বিয়ে করতে। অনেকেই প্রেম ভালোবাসার সম্পর্ক গড়ে তোলেন শুধুমাত্র নিজের জীবনসঙ্গীকে আগে থেকেই বুঝতে পারার জন্য। তাদের ধারণা থাকে প্রেমের সম্পর্ক বিয়ে পর্যন্ত গড়ালে সংসার জীবনটি অনেক সুখী হয়। তাই অনেকেই অনেক চিন্তা ভাবনা করেই প্রেমের সম্পর্কে জড়ান। এতে করে পরিবারের পছন্দে বিয়ে করার চিন্তাও থাকে না।

কিন্তু আপনি যাকে সঠিক জীবনসঙ্গী ভাবছেন তিনি কি আসলেই আপনার জন্য সঠিক? আপনি কি পুরোপুরি নিশ্চিত যে তার সাথে সম্পর্ক বিয়ে পর্যন্ত গড়ালে আপনি অনেক সুখী হবেন? অনেকেই এটা বুঝতে পারেন না। বিশেষ করে মেয়েরা। কারণ অনেক ছেলেই রয়েছেন যাদেরকে আপাত দৃষ্টিতে পারফেক্ট মনে হলেও আসলে তারা পারফেক্ট নন। এই ধরণের ছেলেদের এড়িয়ে চলার চেষ্টা করাই ভালো।

তিনি আপনাকে সম্মান করেন না
আপনার প্রেমিক কি আপনাকে আপনার প্রাপ্য সম্মান দিতে পারেন? ধরুন আপনি কোনো একটি কথা ভুল করে বলে ফেলেছেন তখন কি আপনাকে অপমানসূচক কোনো কথা শুনতে হয়? যদি তাই হয় তবে তিনি অবশ্যই আপনাকে সম্মান করেন না। কারণ আপনার ভুল হলে তা দেখিয়ে দেয়া তার কর্তব্য কিন্তু তাই বলে অপমানসূচক কথা বলা তার একেবারেই উচিৎ নয়। অনেক ছেলেই রয়েছেন যাদের মতে মেয়ে মানুষ মানেই বোকা ধরণের। তারা আসলে কোনো নারীকেই সম্মান দিতে পারেন না। এদের কাছ থেকে দূরে থাকাই ভালো।

তিনি সব সময় নিজের কথাতেই ব্যস্ত থাকেন
নিজের কাজ, নিজের পরিবার, নিজের বন্ধুবান্ধব ইত্যাদিতে যিনি সব সময় মগ্ন থাকেন তিনি কখনোই একজন ভালো জীবনসঙ্গী হতে পারবেন না। একটি সম্পর্ক দুজনের মাধ্যমে গড়ে উঠে। এখানে যদি খুব বেশি আত্মকেন্দ্রিক কেউ থেকে থাকেন তবে সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে অনেক সমস্যা পোহাতে হয়। তার চাইতে যেখানে আপনার অস্তিত্বই নেই সেখান থেকে সরে আসুন।

তিনি সবসময় নিজেকে বড় বলে জাহির করতে পছন্দ করে
হামবড়া ভাবের মানুষ নিয়ে ঘর সংসার করা অত্যন্ত ঝামেলার। নিজেকে সব কিছুর ঊর্ধ্বে উপস্থাপনের পিছনে যিনি লেগে থাকেন তিনি কখনোই একজন সঠিক জীবনসঙ্গী হতে পারেন না। আমি এই আমি, সেই, আমি এটা করতে পারি, আমি সেটা করেছি ইত্যাদি ধরণের কথা যদি নিজের প্রেমিকের কাছ থেকে বেশি শোনেন তবে আপনি নিজেই কিছুদিনের মধ্যে বিরক্ত হয়ে যাবেন।

তিনি আপনার মতামতের গুরুত্ব দেন না
একটি সম্পর্কে দুজনের উপস্থিতি সবচাইতে বেশি জরুরী। দুজনের চিন্তা, দুজনের মতামত সব কিছু থেকেই সম্পর্ক এগিয়ে যায়। কিন্তু আপনাদের ভালোবাসার সম্পর্কে থাকার সময়েই তিনি যদি আপনার কথা মূল্য না দেন এবং আপনার মতামতের গুরুত্ব না দেন তবে বিয়ের পর তিনি কি করবেন তা বলে দিতে হবে না। আর এই ধরণের পুরুষের সাথে সংসারও সুখের হবে না।

তার মধ্যে ব্যক্তিত্বের অভাব
হতে পারে তার মধ্যকার অনেক কিছুই আপনার কাছে পছন্দনীয় কিন্তু তার মধ্যে যদি ব্যক্তিত্বের অভাব থেকে থাকে তবে তিনি আপনার জন্য কখনোই সঠিক জীবনসঙ্গী হতে পারেন না। ব্যক্তিত্বহীন পুরুষ যতোই আকর্ষণীয় হোক না কেন জীবনসঙ্গী হওয়ার যোগ্য নন। তিনি আপনার পরিবার পরিজনদের সাথেও ভালো করে মিশতে পারবেন না।

তিনি আপনাকে সন্দেহ করেন
একজন প্রেমিক হিসেবে তিনি আপনাকে বলতে পারেন আপনার জন্য কোনটা ভালো এবং কোনটা মন্দ। কিন্তু আপনাকে সন্দেহ করে আপনার পিছনে লেগে থাকাটা আসলেই একজন ভালো জীবনসঙ্গীর লক্ষণ নয়। সম্পর্কে বিশ্বাস থাকাটা অনেক বেশি জরুরী। তিনি আপনাকে বিশ্বাস না করে সন্দেহ করে থাকে আপনাদের সম্পর্কের ভিত্তিই নড়বড়ে। এর ওপর ভর দিয়ে জীবন চালাতে পারবেন না।

সূত্র: প্রিয়লাইফ

Check Also

পরকীয়ার শিকার হচ্ছেন না তো আপনি?

আপনি ভাবছেন আপনার জীবনসঙ্গী খুবই ভালো মানুষ, তিনি আপনার সঙ্গে খুবই ভালো আচরণ করেন, তার …