Advertisements

সুস্বাদু মজাদার ‘কড়াই চিকেন’

amitumi_korai-chicken সুস্বাদু মজাদার ‘কড়াই চিকেন’

একই ধরণের খাবারের স্বাদ বদলে নতুন নতুন পদ রান্না করতে ভালোই লাগে। বিশেষ করে মুরগীর মাংসের পদগুলো। কারণ একই মুরগীর মাংস দিয়ে ভিন্ন স্টাইলে অনেক ধরণের খাবার তৈরি করা যায়। এবং সব চাইতে ভালো ব্যাপারটি হলো খেতেও বেশ সুস্বাদুই হয়। আজকে এমনই একটি মজার পদ নিয়ে হাজির হলাম। চলুন তবে ঝটপট শিখে নিই ‘কড়াই চিকেন’ রান্নার সহজ রেসিপিটি।

উপকরণঃ

– আধা কেজি মুরগীর মাংস
– ৩ টি বড় পেঁয়াজ কিউব করে কেটে ছাড়িয়ে নেয়া
– ২ টি বড় টমেটো পিষে নেয়া
– আধা কাপ ক্যাপসিকাম বড় করে কিউব করে কাটা
– ১ চা চামচ গরম মসলা গুঁড়ো
– লবণ স্বাদ মতো
– ২ কাপ পানি
– ৩ চা চামচ আদা-রসুন বাটা
– আধা চা চামচ হলুদ গুঁড়ো
– ২ টেবিল চামচ লেবুর রস
– ৩ টেবিল চামচ তেল
– ২ টি তেজ পাতা
– ২ টি লবঙ্গ
– ৫-৬ টি এলাচ

মসলার জন্য
– ধনে ১ চা চামচ
– ৪ টি শুকনো মরিচ
– ১ চা চামচ জিরা
– ১ ইঞ্চি দারুচিনি

পদ্ধতিঃ

Advertisements

– মসলার জন্য রাখা সব কিছু একটি প্যানে শুকনো করে ২ মিনিট ভেজে গুঁড়ো করে নিন বা হামান দিস্তায় পিষে নিন।
– মুরগী ছোটো করে কেটে ধুয়ে নিয়ে বানানো মসলার অর্ধেক, ১ চা চামচ আদা-রসুন বাটা, হলুদ গুঁড়ো, আধা চা চামচ লবণ ও লেবুর রস দিয়ে মাখিয়ে রেখে দিন ৩০ মিনিট।
– একটি প্যানে তেল দিয়ে এতে তেজপাতা, লবঙ্গ ও এলাচ দিয়ে নেড়ে নিন। এতে পেঁয়াজ ও আদা-রসুন বাটা দিয়ে নেড়ে নিন ভালো করে।
– পেঁয়াজ নরম হয়ে এলে বান্যে রাখা মসলার বাকি অর্ধেকটা দিয়ে ১ মিনিট নেড়ে নিয়ে পিষে রাখা টমেটো দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নাড়তে থাকুন।
– তেল উপরে উঠে এলে মুরগীর মাংস দিয়ে মিশিয়ে নিয়ে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে ৪-৫ মিনিট রেঁধে নিন।
– এরপর লবণ ও ২ কাপ পানি দিয়ে দিন। ঝোল ফুটতে শুরু করলে ধকনা দিয়ে ঢেকে ১২-১৫ মিনিট রান্না করুন। মুরগীর মাংস সেদ্ধ এবং ঝোল মাখা মাখা ধরণের হয়ে এলে ক্যাপসিকাম সিয়ে নেড়ে নিন। এবং ঢাকনা দিয়ে ঢেকে আরও ৫ মিনিট রান্না করুন মাঝারি আঁচে।
– ক্যাপসিকাম সেদ্ধ হয়ে এলে এবং ঝোল পুরো মাখা মাখা হয়ে এলে লবণের স্বাদ বুঝে নিন। এরপর ওপরে গরম মসলা গুঁড়ো ছিটিয়ে একটু নেড়ে নিয়ে চুলা থেকে নামিয়ে ফেলুন।
– ব্যস, এবার গরম ভাত বা রুটি পরোটার সাথে মজা নিন সুস্বাদু ‘কড়াই চিকেন’এর।

সূত্র: প্রিয় লাইফ

Advertisements

Check Also

মজাদার রসুন ভর্তা তৈরির রেসিপি

গরম ভাতে সুস্বাদু ভর্তার কোনো পদ হলে আর কথা নেই! গপাগপ কখন যে সাবাড় হয়ে …