আলপনার রঙে রাঙানো একুশ

rupcare_ekush in alpona
একুশে ফেব্রুয়ারি। বাঙ্গালির চেতনা জাগ্রত হওয়ার এক মহান দিন। ভাষার জন্য জীবন উৎসর্গকারী শহীদদের স্মরণ করার দিন। মায়ের ভাষা বাংলা’কে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে রাজপথ রঞ্জিত করে যারা শহীদের মর্যাদা পেয়েছেন তাদের অবদান কোন কালেই ভুলবার নয়। বছর ঘুরে প্রতিবারই আসে ভাষার মাস ফেব্রুয়ারি। ভাষা শহীদদের স্মরণে তাই আয়োজনের কমতি থাকে না।
সে আয়োজনে থাকে শহীদ মিনার ও এর আশেপাশের এলাকায় আলপনা আঁকার কাজ। এ দিন শহীদ মিনারের বেদি, আশপাশের পথ আর দেয়ালগুলোকে দেখা যায় আর দশটা দিনের চেয়ে আলাদা রূপে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সহায়তায় এই সম্পূর্ণ আলপনা ও দেয়ালচিত্রের কাজগুলো করে থাকেন চারুকলা অনুষদের শিক্ষার্থীরা এবং তাঁদের তত্ত্বাবধান করেন অনুষদের শিক্ষকেরা।
প্রতি বছরই একুশে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় চলে আলপনা আঁকার প্রস্তুতি। শুরু হয় এক অনন্য মহাযজ্ঞ! চারুকলার কোন শিক্ষার্থীই বাদ যায় না এ শৈল্পিক কাজ করা থেকে। সবাই কাজে লেগে পড়েন। কেউ হয়তো আলপনার লে-আউট করে দেন আবার কেউবা তার ওপর আলপনা আঁকার কাজটি করেন। একদিকে চলে রং বানানোর কাজ। আর একদিকে আলপনার কাজ। রঙ্গের খেলায় মাতে প্রতিটি উচ্ছল প্রাণ।
কাজের ফাঁকে বন্ধুদের সঙ্গে খুনসুঁটিও চলে বেশ। পুরো রাস্তার চলে আলপনার কাজ। দেয়ালচিত্র আঁকার মূল কাজটি করেন মূলত শিক্ষকেরাই। শিক্ষকদের সহায়তা করেন শিক্ষার্থীরা। এসব নিয়ে কথা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চারুকলার শিক্ষার্থী পুলক এর সঙ্গে। তিনি জানান, ‘একুশের কাজ করার মাধ্যমে চারুকলার নবীন শিক্ষার্থীদের শেখার সুযোগ থাকে অনেক বেশি। ‘চারুকলার শিক্ষার্থীরা শহীদ মিনারের মূল বেদি, মূল চত্বর, পশ্চিম পাশের রাস্তা, বুয়েট ও জগন্নাথ হলের মোড় পর্যন্ত, উত্তর পাশের রাস্তা ঢাকা মেডিকেলের বহির্বিভাগের মোড় থেকে দোয়েল চত্বর মোড় পর্যন্ত রঙে রঙে রাঙিয়ে থাকেন।
মহান ভাষা আন্দোলন ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে যুক্ত করতেই আজও দাঁড়িয়ে আছে বিশ্ববিদ্যালয়ের বুকে মহান শহীদ মিনার।
ভাষা আন্দোলনের যাত্রা শুরু হয়েছিল সেই কবে। আজ থেকে ৫৮ বছর আগে ১৯৫২ সালে। প্রতিবছর ফেব্রুয়ারি আসলেই যেন ভিন্নমাত্রা পায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। এবারও তার ব্যতিক্রম নয়। যাদের জন্য এত উৎসর্গ, সংগ্রাম, আত্মাহুতি ও রক্তদান এই বিশ্ববিদ্যালয়ের, তার জন্য তো আয়োজন করতেই হবে। প্রতি বছরের ন্যায় শহীদ মিনারসহ গোটা ক্যাম্পাস যেন সেজে উঠতে শুরু করেছে নানা রঙ্গে।
শহীদ মিনারের আলপনা আঁকার মূল কাজ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলার শিক্ষার্থীরা। এরই মধ্যে আলপনাসহ শহীদ মিনারকে সাজানোর কাজ শুরু হয়ে গেছে। আর এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের একঝাঁক ছেলেমেয়ে কাজ করবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চারুকলার শিক্ষার্থী ছাড়াও এতে অংশ নেয় অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলার শিক্ষার্থীরাও। আলপনার কাজে অংশ নেয়া ইউডা চারুকলার শিক্ষার্থী কাজী তারিফ বলেন, ‘একুশের চেতনাকে ধরে রাখতে প্রতিবছর শহীদদের স্মরণে শহীদ মিনার ও এর আশেপাশের এলাকার শোভাবর্ধনের কাজ করা হয়। আর এত অংশ নিয়ে বেশ আনন্দেই থাকি। ‘
গত বছরে আলপনা এঁকেছিলেন এমন কয়েকজনের অনুভূতি জানতে চাইলে তারা বলেন, যে ভাষার জন্য জাতি জীবন দিয়েছে, রাজপথে শহীদ হয়েছেন আমার ভাইয়েরা, তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে আলপনা এঁকে বাংলা ভাষা ও ভাষা শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাই।
সূত্র: সময় নিউজ

Check Also

চিনি থেকে পিঁপড়া তাড়ানোর দারুণ উপায়

চিনি রাখা নিয়ে অনেকেই ঝামেলায় পড়েন। যেমন পাত্রেই রাখেন না কেন পিঁপড়া এসে হাজির হয়। …