কাঁচাআমের ভিনদেশি তিনপদ

amitumi_3 foreign mango items

এখন চলছে কাঁচা আমের মৌসুম। অনেকেই কাঁচা আম দিয়ে তৈরী করেন নানা পদ। তবে আজ আমরা এই দেশি ফলে ৩টি মজাদার ভিনদেশি রান্না শিখবো। রেসিপি দিয়েছেন আনিসা হোসেইন ।

১। গ্রিন ম্যাঙ্গো সালাদ

উপকরণ:
কাঁচাআম ২টি। ক্যাপসিকাম একটার অর্ধেক (সবুজ ও লাল দুটোই )। চিংড়ি মাছ ৬টি। মরিচগুঁড়া আধা টেবিল-চামচ। পেঁয়াজকুচি অল্প পরিমাণ। আধাভাঙা করা বাদাম, আধা কাপ৷

সালাদ ড্রেসিংয়ের জন্য:
অলিভ অয়েল ৪ টেবিল-চামচ। লেবুর রস ২ টেবিল-চামচ। আখের গুঁড় অথবা চিনি ২ টেবিল-চামচ। ফিশ সস আধা টেবিল-চামচ। লবণ স্বাদমতো৷
সালাদ ডেসিংয়ের সব উপকরণ একসঙ্গে একটি গ্লাসে নিয়ে, ঢেকে ঝালমুড়ির মতো ঝাঁকিয়ে খুব ভালো করে মিশিয়ে নিন৷

পদ্ধতি:

চিংড়ি মাছ সঙ্গে লবণ এবং মরিচগুঁড়া দিয়ে, হালকা তেলে চিংড়িগুলো ভেজে নিন৷ আম এবং ক্যাপসিকাম পাতলা পাতলা মিহি টুকরা কেটে নিন৷ পেঁয়াজ, ধনেপাতা, কাচাঁমরিচ, কাটা আম, ক্যাপেসিকাম, বাদাম আর ভাজা চিংড়ি সব একসঙ্গে নিয়ে, আগেই বানানো সালাদ ডেসিং মিশিয়ে নিন এবং উপরে আরও কিছু বাদাম ছিটিয়ে পরিবেশন করুন গ্রিন ম্যাঙ্গো সালাদ৷

২। ম্যাঙ্গো গ্রিল চিকেন

উপকরণ:
মুরগি ১টি। রসুনবাটা ২ টেবিল-চামচ। সরিষাবাটা ১ টেবিল-চামচ। হলুদ ১ চা-চামচ। কাঁচাআমের পিউরি। ধনেপাতা-বাটা ১ টেবিল-চামচ। কাঁচামরিচ-বাটা স্বাদমতো। আস্ত ধনিয়া ১ টেবিল-চামচ। আস্তজিরা আধা টেবিল-চামচ। এলাচ ৩টি। দারুচিনি ১ টুকরা। গোলমরিচ ১ চা-চামচ। শুকনামরিচ ২টি। আখের গুঁড় ২ টেবিল-চামচ। সরিষার তেল ৫ টেবিল-চামচ। লবণ স্বাদমতো।
ধনিয়া, জিরা, এলাচ, দারুচিনি, গোলমরিচ, শুকনা মরিচ— এগুলো হালকা টেলে গুঁড়া করে নিন৷

পদ্ধতি:

মুরগি লম্বালম্বিভাবে মাঝামাঝি কেটে দুই টুকরা করে নিন৷ ধুয়ে ভালো করে পানি ঝরিয়ে রাখুন৷

একটি মাঝারি আকারের আম কেটে, আমের সঙ্গে দুই টেবিল-চামচ পানি এবং লবণ দিয়ে ঢেকে পাঁচ মিনিট রান্না করুন৷ আম হালকা সিদ্ধ হয়ে পানি শুকিয়ে গেলে নামিয়ে ঠাণ্ডা হলে বেটে আমের পিউরি তৈরি করে নিন৷

পানি ঝরানো মুরগির সঙ্গে গুঁড়ামসলা, আমের পিউরি, লবণ এবং বাকি সবমসলা মেখে একঘণ্টা ফ্রিজে রেখে দিন৷

১৮০ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা ৩৫০ ডিগ্রি ফারেনহাইট তাপে ওভেন গরম করে নিন৷

মেরিনেইট করা মুরগি বেইকিং ট্রেতে করে গরম করা ওভেনে ৪৫ মিনিট গ্রিল করুন৷ মাঝের সময়ে একবার মুরগি উল্টে দিন যাতে সমানভাবে দুই দিকে গ্রিল হয়৷

গ্রিল করা মুরগি গরম থাকতেই উপরে লেবুর রস দিয়ে নানরুটি অথবা পোলাওয়ের সঙ্গে পরিবেশন করুন৷

চুলায় করতে চাইলে: কড়াইতে একটু সরিষা তেল দিয়ে, মেরিনেইট করা মুরগি মাঝারি আঁচে ৪৮ মিনিট রান্না করবেন অথবা যে পর্যন্ত মুরগি পোড়া পোড়া না হয় ততক্ষণ পর্যন্ত রান্না করুন৷

৩। সুইট অ্যান্ড সাওয়ার ম্যাঙ্গো ফিশ

এই পদ করতে দুটি আলাদা পদ্ধতির প্রয়োজন। প্রথম পদ্ধতিতে মাছভাজা আর দ্বিতীয়তে সস তৈরি।

মাছ ভাজার উপকরণ:
বড় মাছ তেলাপিয়া বা কোরাল (মাঝারি আকারের)। সয়া সস ১ টেবিল-চামচ। কাঁচাআমের রস ২ টেবিল-চামচ। ভিনিগার ১ টেবিল-চামচ। কর্নফ্লাওয়ার আধা কাপ। তেল (মাছ আধা ডুবো তেলে ভাজার জন্য যতটুকু দরকার)।

মাছের গ্রেভি বা সস তৈরির উপকরণ:
পেঁয়াজকুচি ১ কাপ। রসুনকুচি ১/৪ কাপ অথবা ১ টা আস্ত রসুন। আদাকুচি ১ টেবিল-চামচ। চিলি ফ্লেক্স ১ টেবিল-চামচ। টমেটো ৬ টেবিল-চামচ। থাই চিলি সস ২ টেবিল-চামচ। সয়া সস ১ টেবিল-চামচ। চিনি ২ টেবিল-চামচ। পেঁয়াজপাতা আধা কাপ। চিকেন স্টক দেড় কাপ। লেবুর রস ১ টেবিল-চামচ। কাজুবাদাম ভাজা। আমকুচি ১ কাপ। তেল ৪ টেবিল-চামচ। লবণ স্বাদমতো (সবগুলো সসে লবণ থাকে তাই আলাদাভাবে লবণ দেওয়ার সময় বুঝে দেবেন। লাগলে পরে আবার দিন)।

পদ্ধতি

মাছ ভাজা: মাছ পরিষ্কার করে ধুয়ে নিয়ে পানি ঝরিয়ে নিন৷ এবারে পুরো মাছের মাঝখানে হালকাভাবে আড়াআড়ি কেটে কেঁচে নিন (যেভাবে কই মাছ ভাজার সময় করা হয়)৷ এখন সয়া সস, ভিনিগার এবং আমের রস একসঙ্গে মিশিয়ে মাছের উপর মেখে নিন এবং মেরিনেইট করুন ১০ মিনিটের জন্য৷

মেরিনেইট করা মাছের দুই পাশ কর্নফ্লাওয়ারে ভালো করে গড়িয়ে নিন এবং বড় ফ্রাইপ্যানের মধ্যে তেল গরম করে মাছের দুদিক হালকা বাদামি করে ভেজে নিতে হবে (চুলার আঁচ মাঝারি থাকবে)।

সস রান্না: ফ্রাইপ্যানে তেল গরম করে এরমধ্যে আদা, রসুন, পেঁয়াজকুচি দিয়ে হালকা বাদামি হওয়া পর্যন্ত ভেজে নিতে হবে৷ এরসঙ্গে সয়া সস, টমেটো সস, চিলি সস, চিলি ফ্লেক্স দিয়ে চার মিনিটের মতো কষিয়ে, চিকেন স্টক আর চিনি দিয়ে চার থেকে পাঁচ মিনিট পর যখন গ্রেভি হালকা ঘন হয়ে আসবে তখন লেবুর রস, কাঁচামরিচ, ধনেপাতা, আমকুচি দিয়ে আরও এক মিনিট রান্না করুন।

রান্নার পর চুলা বন্ধ করে গরম গরম গ্রেভি সস ভেজে রাখা মাছের উপর ঢেলে দিয়ে উপরে পেঁয়াজপাতা, গাজর, আম আর ভাজা কাজুবাদাম দিয়ে পরিবেশন করুন মজাদার সুইট অ্যান্ড সাওয়ার ম্যাঙ্গো ফিশ৷

সূত্র: বিডিনিউজ২৪.কম

Check Also

মজাদার রসুন ভর্তা তৈরির রেসিপি

গরম ভাতে সুস্বাদু ভর্তার কোনো পদ হলে আর কথা নেই! গপাগপ কখন যে সাবাড় হয়ে …