নারীরা অসুস্থতার যেসব লক্ষণ উপেক্ষা করে মারাত্মক ভুল করেন

amitumi_tried woman

নারীদের মাঝে নিজের শরীরকে কষ্ট দেবার একটা অদ্ভুত প্রবণতা দেখা যায়। ভয়ংকর সব অসুস্থতাকে তারা দিনের পর দিন লুকিয়ে রাখেন, একটা সময়ে আর তাকে সারিয়ে তোলার উপায় থাকে না। জেনে রাখুন সেসব উপসর্গ, যা আপনার মাঝে দেখা দিলে অবশ্যই তা উপেক্ষা করা যাবে না।

১) ব্যায়াম করতে গেলে মাথা ঘুরছে আপনার

আপনার সাইনাস অথবা কানের ভেতরে কোনো সমস্যার জন্য মাথা ঘুরতে পারে, অথবা এটাও হতে পারে যে সেদিনের ব্যায়ামে আপনি অতিরিক্ত পরিশ্রম করে ফেলেছেন। কিন্তু ভেবে দেখুন, আপনি যথেষ্ট পানি পান করছেন, তাপমাত্রা খুব বেশি নয়, আর এমন কোনো ব্যায়াম করছেন যাতে আগে কখনো সমস্যা হয়নি আপনার- তারপরেও যদি মাথা ঘুরতে থাকে আপনার, তাহলে নিজের হৃৎপিণ্ডের দিকে নজর দেবার দরকার। কোনো সমস্যার কারণে হৃৎপিণ্ড যদি সারা শরীরে ঠিকমতো রক্ত পৌঁছাতে না পারে তবে অবশ্যই মাথা ঘুরবে আপনার। কিছু কিছু ক্ষেত্রে এসব সমস্যা আপনার স্ট্রোক এবং হার্ট ফেইলিওরের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। সুতরাং কোনো কারণ ছাড়াই মাথা ঘুরতে থাকলে অবশ্যই ডাক্তার দেখান।

২) মাঝরাতে হঠাৎ পেট খারাপ হওয়া

এ সমস্যাটি যদি হুট করে একবার হয়ে থাকে তবে চিন্তা করার তেমন কিছু নেই, তা হয়ে থাকতে পারে বদহজম বা খাবারের জার্ম থেকে। কিন্তু যদি প্রায়ই আপনি ঘুম ভেঙ্গে প্রচন্ড বেগ অনুভব করেন, তাহলে অন্ত্রের কোনো গুরুতর সমস্যা হয়ে থাকতে পারে। কারণ ঘুমের সময়ে সাধারণ সুস্থ মানুষের অন্ত্র রিল্যাক্স থাকে, এমনকি কারো আইবিএস থাকলেও ঘুমের মাঝে তা সমস্যা করার কথা না। কিন্তু আপনি যদি প্রায়ই ঘুম ভেঙ্গে দেখেন পেট খারাপ হয়েছে তবে ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়াটা জরুরী।

৩) পিরিয়ডের সময়ে অতিরিক্ত রক্তপাত

পিরিয়ডের সময়ে যদি এতই রক্তপাত হতে থাকে যে প্রতি এক-দুই ঘন্টায় প্যাড বা ট্যাম্পন পাল্টাতে হচ্ছে, এমনকি রাত্রে ঘুম থেকে উঠে প্যাড পাল্টাতে হচ্ছে কয়েকবার, তবে তা অবশ্যই চিন্তার বিষয়। পিরিয়ড রেগুলার হচ্ছে কিন্তু রক্তপাত হচ্ছে অতিরিক্ত, তাহলে এর কারণ হতে পারে ইউটেরাইন ফাইব্রয়েড। এগুলো হলো ইউটেরাসের দেয়ালে তৈরি হওয়া টিউমার। বয়স ৫০ পেরোবার আগেই ২০ থেকে ৮০ শতাংশ নারীকে তা আক্রান্ত করতে পারে। এগুলো খুব একটা ক্ষতিকর না হলেও এদের কারণে বেশ খারাপ কিছু জটিলতা দেখা যায়। যেমন অ্যানিমিয়া, প্রচন্ড ক্লান্তি, গর্ভধারণে সমস্যা ইত্যাদি। থাইরয়েডে সমস্যা থাকলেও অনেক সময়ে এমন অতিরিক্ত রক্তপাত হতে পারে। এ কারণে এই সমস্যাটিকে উড়িয়ে না দিয়ে নিজের গাইনি ডাক্তারকে সবকিছু খুলে বলতে হবে।

৪) অকারণেই দ্রুত অনেকটা ওজন ঝরে যাওয়া

অনেক সময়ে টাইপ টু ডায়াবেটিসের কারণে হুট করে অনেকটা ওজন হারান নারীরা। কিন্তু এ ধরণের কারণ ছাড়া ৫ কেজির মতো ওজন কমে গেলে তা হতে পারে ক্যান্সারের প্রথম লক্ষণ। বিশেষ করে অগ্ন্যাশয়ের ক্যান্সারে এটা বেশি দেখা যায়। তাই বিগত ৬-১২ মাসের মধ্যে কোনো কারণ ছাড়াই জরি আপনার ওজন ৫ কেজি বা তারো বেশি কমে যায় তবে অতিসত্বর ডাক্তার দেখাতে হবে।

৫) দৃষ্টিশক্তি কমে যাওয়া

বয়সের কারণে দৃষ্টিশক্তি কমে যেতে পারে। বিশেষ করে আপনার যদি ল্যাপটপ বা ফোনের দিকে তাকাতে সমস্যা হয়। ৪০ পেরোনোর পর বেশিরভাগ মানুষই কাছের ঝাপসা দেখেন। এতে চিন্তিত হবার কিছু নেই। তবে চিন্তিত হবেন কখন? হঠাৎ করে যদি আপনার মনে হয় আপনি আশেপাশের জিনিস দেখতে পাচ্ছেন না, শুধু সামনে যা আছে তা দেখতে পাচ্ছেন, তবে তা স্ট্রোকের লক্ষণ। ৩৫-৫৪ বছর বয়সের মানুষের মাঝে এটা সচরাচর হতে পারে এবং পুরুষের চাইতে বেশি ঝুঁকিতে থাকেন নারীরা। শুধু তাই না, যদি মনে হয় আপনার চোখের সামনে কিছু ভাসছে, অথচ আসলে সামনে কিছু নেই, তাহলে এব্যাপারেও সাবধান থাকতে হবে। এটা রেটিনার সমস্যা নির্দেশ করে।

Check Also

ঘুমের সময় মেয়েদের অন্তর্বাস পরা কি জরুরি?

ঘুমের সময় পোশাকটি কেমন হবে তা নিয়ে চিন্তিত থাকেন বেশিরভাগ নারী। কারণ আঁটসাঁট পোশাক পরলে …