এই গ্রামে দিনে নাইটি পরলেই জরিমানা!

প্রতিদিনই বিশ্বের নানা প্রান্তে নানা ঘটনা ঘটে। কিন্তু কিছু ঘটনা, কিছু খবর কেবল বিস্ময়ই সৃষ্টি করে না, হতবাকও করে দেয়। তেমনই একটি ঘটনার কথা জানা গেল হিন্দুস্তানটাইমসের প্রতিবেদনে। যেখানে নারীদের নাইটি (অন্তর্বাস) পরা নিয়ে অবাক করা এক খবর উঠে আসে।

৯ নভেম্বর, শুক্রবার হিন্দুস্তানটাইমসের ওই প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশের পশ্চিম গোদাবরি জেলার তোকালাপল্লি গ্রামে দিনের বেলা নারীদের নাইটি পরায় নিষেধাজ্ঞা জারি রয়েছে।

কেন এমন নিয়ম? তার উত্তরে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, তোকালাপল্লি গ্রামের মোড়ল গোত্রের কয়েক জন প্রবীণ ব্যক্তি এই আজব নিয়মের জন্ম দিয়েছেন।

ওই প্রবীণ ব্যক্তিদের মতে, নাইটি শব্দের মধ্যেই লুকিয়ে রয়েছে পোশাকটি দিনের কোন সময়ের জন্য তৈরি। তাদের মতে, যেহেতু নাইট অর্থাৎ শুধু রাতেই এই পোশাক পরতে হয়, তাই ওই গ্রামের নারীদের রাতেই অন্তর্বাসটি পরার অনুমতি রয়েছে। কোনো মহিলা দিনভর নাইটি পরে স্বাচ্ছন্দ্য অনুভব করলেও নিয়ম মেনে নেওয়া ছাড়া কোনো উপায় নেই। কারণ না মানলেই শাস্তির খড়্গ নেমে আসবে।

প্রতিবেদন থেকে আরও জানা যায়, উল্লিখিত গ্রামের ৯ জন প্রবীণ ব্যক্তি ‘গ্রাম উন্নয়ন কমিটি’ নামে একটি কমিটি তৈরি করেন। যাতে রয়েছেন মহিলাও। তারাই আলোচনার মাধ্যমে এমন অদ্ভুত সিদ্ধান্ত নেন। জানিয়ে দেওয়া হয়, কোনো মহিলাকে দিনে নাইটিতে দেখলে জরিমানা দিতে হবে। কমিটি থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়, সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৭টার মধ্যে কাউকে এই পোশাকে দেখা গেলে দুই হাজার টাকা জরিমানা করা হবে। এখানেই শেষ নয়, যে ব্যক্তি এমন মহিলাকে ধরিয়ে দিতে পারবেন, তাকে আবার পুরস্কার হিসেবে এক হাজার টাকা দেওয়া হবে।

এ বিষয়ে ওই গ্রামের মোড়ল ফান্তাসিয়া মহালক্ষ্মী জানান, নাইটি পরে মহিলাদের প্রকাশ্যে জামা-কাপড় কাচা থেকে বাজার করতে যাওয়ার বিষয়টি বেশ দৃষ্টিকটু। সেই কারণেই এমন সিদ্ধান্ত। তবে গ্রামের নারীদের যে এর জন্য রীতিমতো হুমকির মুখে পড়তে হয়, সে কথা অস্বীকারই করেছেন তিনি। কিন্তু নিজে একজন মহিলা হয়ে কীভাবে তিনি এমন সিদ্ধান্ত নিলেন, তা বুঝে উঠতে পারছেন না অনেকেই।

গত ৭ মাস ধরে এমন নিয়ম চালু থাকলেও গত ৮ নভেম্বর, বৃহস্পতিবার নিদামারু থানার উপপরিদর্শক বিজয় কুমার রাজস্ব কর্মকর্তা সুন্দর রাজুকে নিয়ে গ্রামটি পরিদর্শনে গেলে তা প্রকাশ্যে আসে।। তারা একটি বেনামি চিঠি পেয়ে ওই গ্রামে যান। যদিও বিষয়টি তাদের কাছে গোপন রাখারই চেষ্টা করা হয়েছিল। তারপর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় জোর চর্চা শুরু হয় এ নিয়ে।

Check Also

তাহলে কী লাদেন বেঁচে আছেন, এতদিন পর বোমা ফাটালেন ট্রাম্প

“মার্কিন সেনারা আল-কায়েদার সাবেক নেতা ওসামা বিন লাদেনের পরিবর্তে অন্য কাউকে হত্যা করেছে। লাদেনের এখনো …