বিয়ে নিয়ে এক ডজন কৌতুক, সঙ্গে দুটো ফ্রি

বিয়ে করতে পারব না

প্রেমিক–প্রেমিকার মধ্যে কথা হচ্ছে।

প্রেমিক: আমি বোধ হয় তোমাকে বিয়ে করতে পারব না।

প্রেমিকা: কেন?

প্রেমিক: আমার বাসায় ব্যাপারটা মেনে নেবে না।

প্রেমিকা: কে কে আছে তোমার বাসায়?

প্রেমিক: আমার স্ত্রী আর দুই সন্তান।

বিয়ে হয়ে গেছে

দুই বন্ধুর মধ্যে কথা হচ্ছে—

প্রথম বন্ধু: জানিস, আমার আর লিজার বিয়ে হয়ে গেছে।

দ্বিতীয় বন্ধু: তাই নাকি রে! আগে তো বলিসনি। এত দিন প্রেম করলি। তা কবে তোদের বিয়ে হলো?

প্রথম বন্ধু: আমার বিয়েটা হয়েছে এ মাসের ১৬ তারিখ। আর লিজার ২৫ তারিখ।

মিথ্যুক বউ

১ম বন্ধু: দোস্ত, বিয়ে করে খুব বিপদে আছি। আমার বউটারে আর বিশ্বাস নাই। খালি মিথ্যা কথা কয়। কী যে করি!

২য় বন্ধু: ক্যান, কী হইছে দোস্ত?

১ম বন্ধু: আর কইস না। কাল রাতে আমি বাড়ি ছিলাম না। সকালে আইসা দেখি বউ ঘরে নাই। দুপুরে ফিরতেই জিগাইলাম, কই গেছিলা? কয় তার বোনের বাড়িতে বেড়াতে গেছিল।

২য় বন্ধু: হুম, তয় বিশ্বাস না করার কী হইল?

১ম বন্ধু: আরে, তার বোনতো রাতে আমার লগে ছিল।

১০ বছর

একটি মেয়ের সবেমাত্র বাগদান হয়েছে। তার অফিসের এক বিবাহিত মহিলা এলেন তাকে উপদেশ দিতে।

—শোনো, বিয়ের পর প্রথম ১০ বছরই সবচেয়ে কঠিন।

—আপনার বিয়ে হয়েছে কত দিন?

—১০ বছর।

সত্যি সত্যি চলে যাব

প্রেমিক-প্রেমিকার মধ্য তুমুল ঝগড়া চলছে।

একপর্যায়ে প্রেমিকা তার প্রেমিককে বলল, আমার চোখের সামনে থেকে দূর হয়ে যাও। তুমি জীবনেও শান্তি পাবে না, সারা জীবন কষ্টে কষ্টে কাটবে।

এই শুনে প্রেমিক বলল, তুমি কি সত্যি সত্যি আমাকে চলে যেতে বলছ নাকি তোমাকে বিয়ে করার কথা বলছ?

বিয়ের আগে ও পরে

বিয়ের আগে—

বিয়ের কথা ভাবা হচ্ছে বুদ্ধিমত্তার বিপক্ষে কল্পনার জয়। দুজনই বলে, তারা একে অন্যের জন্য নরকে পর্যন্ত যেতে রাজি। তারা এমনই ভালোবাসে যে, ভালোবাসা অন্ধ! মনে হয় অনেক ঝক্কিঝামেলা পেরোনোর পর বিয়ে করতে হবে। ছেলেরা ভাবে, তাদের জীবনে কোনো ভুল নেই।

বিয়ের পরে—

দ্বিতীয় বিয়ের কথা ভাবা হচ্ছে অভিজ্ঞতার বিপক্ষে আশাবাদের জয়। তাদের সে আশা পূর্ণ হয়েছে, তারা একসঙ্গেই সংসার করে। তাদের চোখ খুলে যায়। মনে হয় বিয়ের পরই আসলে অনেক ঝক্কিঝামেলা শুরু হতে যাচ্ছে। থাক সে কথা! এটা ছাপা হওয়ার দুই দিন পরে হলেও তো আমাকে বাসায়ই ফিরতে হবে। তাই না?

ছেলেকে বিয়ে

উকিল সাক্ষীকে একটা দমক দিলেন: আপনি বিয়ে করেছেন?

সাক্ষী: জি, করেছি।

উকিল: কাকে?

সাক্ষী: একটা মেয়েকে।

উকিল: যত্তসব, তাও আবার বলতে হয়। কখনো কাউকে একটা ছেলেকে বিয়ে করতে দেখেছেন?

সাক্ষী: জি, দেখেছি, আমার বোন একটা ছেলেকে করেছে।

উপদেশ

বাবা ছেলেকে উপদেশ দিচ্ছেন—

বাবা: শোন বাবা তোকে একটা কথা বলি। বিয়ে করা মানেই নরকে যাওয়া। যদি সুখ শান্তিতে থাকতে চাস তাহলে জীবনেও বিয়ে করিস না।

ছেলে: চিন্তা করো না বাবা। আমি তোমার উপদেশ কখনো ভুলব না। আমার ছেলেকেও এই উপদেশ দিয়ে যাব।

নতুন আরেকটি বিয়ে

রাতেরবেলায় হাবলু বেশ উত্তেজিত হয়ে চিকিৎসককে ফোন করেছে।

হাবলু: স্যার, দয়া করে তাড়াতাড়ি একটু আমাদের বাসায় আসুন। আমার স্ত্রী ব্যথায় উঠতে পারছে না। মনে হচ্ছে এটা অ্যাপেনডিসাইটিসের ব্যথা।

চিকিৎসক: ভয়ের কোনো কারণ নেই। আমি সকাল হলেই আপনার বাসায় পৌঁছে যাব।

হাবলু: কিন্তু স্যার, আমার স্ত্রীর অবস্থা যে খুবই খারাপ।

চিকিৎসক: (এবার একটু উত্তেজিত) কী বলছেন যা-তা! দুই বছর আগেই তো আপনার স্ত্রীর অ্যাপেনডিসাইটিস অপারেশন করে ফেলে দিয়েছি। তার তো আর অ্যাপেনডিসাইটিসের ব্যথা হতে পারে না। এটা অন্য কোনো ব্যথা।

হাবলু: সবই ঠিক আছে। কিন্তু স্যার, আমি যে নতুন আরেকটি বিয়ে করেছি।

ই-মেইলে বিয়ে

এক মার্কিন ও এক ভারতীয়র মধ্যে বিয়ে নিয়ে কথা হচ্ছে—

মার্কিন: জানো, আমাদের দেশে বিয়ে ই-মেইলে হয়।

ভারতীয়: বাহ্, খুব ভালো তো। কিন্তু আমাদের দেশে বিয়েটা শুধু ফিমেলের (নারী) সঙ্গেই হয়।

নিজেরা নিজেরা

আমার এক কাজিন তার মাকে প্রশ্ন করছে, মা, তুমি কাকে বিয়ে করেছ?

মা: কেন! তোর বাবাকে?

ছেলে: আর বাবা কাকে বিয়ে করেছে?

মা: কেন! আমাকে?

ছেলে: ও আচ্ছা! বুঝতে পেরেছি। নিজেরা নিজেরা!

বিয়ের কারণ

—তুমি কি লিজাকে বিয়ে করছ শুধু তার দাদার রেখে যাওয়া সম্পত্তির কারণে?

—অবশ্যই না। অন্য কেউ রেখে গেলেও আমি ওকে বিয়ে করতাম।

বিয়ে করব না

জজ সাহেব: যখন এই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে হচ্ছিল তখন কি তুমি সেখানে উপস্থিত ছিলে?

সাক্ষী: জি।

জজ সাহেব: এই ঝগড়া থেকে তোমার কি ধারণা হলো?

সাক্ষী: হুজুর আমি জীবনেও বিয়ে করব না ।

পারফেক্ট

চল্লিশ বছর পার হয়ে গেছে তবু বিয়ে করেনি এক লোক। একদিন একজন এর কারণ জানতে চাইল ।

লোকটি বলল, সারা জীবন আমি একটা পারফেক্ট মেয়ের খোঁজ করেছি।

প্রথম ব্যক্তি: তা একটি মেয়েও পাননি?

দ্বিতীয় ব্যক্তি: পেয়েছিলাম একজন। কিন্তু সে আবার একটি পারফেক্ট ছেলের অপেক্ষায় ছিল।

Check Also

আপনার ব্যক্তিত্ব কেমন? নাক দেখে জেনে নিন

কারো নাক বেশ সরু-খাড়া, আবার কারো নাক একটু ভোঁতা। কত রকম নাকের মানুষই না রয়েছে …