অশ্বিনের বিতর্কিত কাণ্ড, বিশ্বজুড়ে নিন্দার ঝড়

 

১৩তম ওভারে বল হাতে তুলে নেন অশ্বিন। ওভারের পঞ্চম বলেই বিতর্কের জন্ম দেন পাঞ্জাবের ডানহাতি এই অফস্পিনার।

গেল ২৩ মার্চ মাঠে গড়িয়েছে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) দ্বাদশ আসর। এর তিনদিনের মাথায় বিতর্ক সঙ্গী হলো ভারতের ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি লিগের। বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন দেশটির জাতীয় দলের তারকা স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিন।

২৫ মার্চ, সোমবার নিজেদের প্রথম ম্যাচে রাজস্থান রয়্যালের মুখোমুখি হয় কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব। এদিন টস হেরে আগে ব্যাটিং করতে নেমে ৪৭ বলে ক্রিস গেইলের ৭৯ রানে ভর করে ১৮৪ রানের সংগ্রহ পায় পাঞ্জাব। জবাবে বাটলারের ব্যাটে ভর করে ভালোভাবেই এগোচ্ছিল রাজস্থান। তাতে শেষ আট ওভারে জয়ের জন্য রাজস্থানের দরকার ছিল ৮০ রান। ক্রিজে ছিলেন সঞ্জু স্যামসন ও জস বাটলার।

১৩তম ওভারে বল হাতে তুলে নেন অশ্বিন। ওভারের পঞ্চম বলেই বিতর্কের জন্ম দেন পাঞ্জাবের ডানহাতি এই অফস্পিনার। এ সময় নিজের স্বাভাবিক ভঙ্গিতে ওভারের পঞ্চম বলটি করতে যান তিনি। কিন্তু পপিং ক্রিজের মধ্যে হাত ঘোরানোর সময় হুট করে থেমে যান তিনি। বাটলার পপিং ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে যান কি-না সেটা দেখার জন্য কিছুটা সময় নেন ডানহাতি এই স্পিনার। ততক্ষণে উইকেট ছেড়ে খানিকটা বেরিয়ে যান নন স্ট্রাইকিং প্রান্তে থাকা বাটলার।

সুযোগটা বেশ ভালোভাবেই কাজে লাগান অশ্বিন। বাটলার পপিং ক্রিজ ছাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই বেলস ফেলে দিয়ে রান আউটের আবেদন করে বসেন অশ্বিন। টেলিভিশন রিপ্লে দেখে হতভম্ব বাটলারকে অবাক করে দিয়ে তাকে আউট ঘোষণা করেন থার্ড আম্পায়ার। বাটলার আউট হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে জমে ওঠে বিতর্ক। শুধু তাই নয়, এই ঘটনায় তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছেন অশ্বিন। এমনকি বিশ্বের অনেক সাবেক ও বর্তমান ক্রিকেটাররা অশ্বিনের সমালোচনায় সরব হয়েছেন।

বেলস ফেলে দিয়ে রান আউটের আবেদন করছেন অশ্বিন। ছবি: সংগৃহীত

এমন ঘটনায় অশ্বিনের ওপর বেজায় চটেছেন এবারের আইপিএলে রাজস্থান রয়্যালসের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডরের দায়িত্ব পালন করা শেন ওয়ার্ন। কিংবদন্তি এই স্পিনার তার ব্যক্তিগত টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে লিখেন, ‘একটা দল কীভাবে খেলতে চায় ও কী চায় দলের অধিনায়কই সেটার মান নির্ধারণ করে দেয়। তাই বলে এত অরুচিকর আর অসম্মানজনক কাজ করা কেন? তোমাকে নিজের পরিবার আর পরিচিতজনের সাথেই থাকতে হবে অশ্বিন। ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করতে ইতিমধ্যে বিলম্ব করে ফেলেছ তুমি। তোমাকে এই অরুচিকর কাজের জন্য মনে রাখা হবে।’

দক্ষিণ আফ্রিকার গতি তারকা ডেল স্টেইন এই আউটের বিরোধিতা করে লিখেছেন, ‘এ আউটের মাধ্যমে ক্রিকেটের স্পিরিট নষ্ট হলো। এটা দিয়ে অশ্বিন কখনো কোনো পুরস্কার জিততে পারবে না।’

ইংল্যান্ডের ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক ইয়ন মরগান তার টুইটে লিখেন, ‘আইপিএলে যা দেখেছি, সেটা আমি বিশ্বাস করতে চাই না। এটা আগামী প্রজন্মের ক্রিকেটারদের জন্য ভয়ঙ্কর উদাহরণ হবে। আমার মনে হচ্ছে, এজন্য অশ্বিন অনুশোচনা করবে।’

আরেক ইংলিশ ক্রিকেটার জেসন রয় টুইট করে লিখেছেন, ‘অশ্বিনের এমন ক্রিকেটীয় আচরণে লজ্জিত। আমার মনে হয়, এর চেয়ে দুর্ভাগ্যজনক কিছু হতে পারে না।’

এখানেই শেষ নয়। অনেক ভারতীয় ক্রিকেটার পর্যন্ত অশ্বিনের সমালোচনা করেছেন। দেশটির সাবেক ক্রিকেটার মোহাম্মদ কাইফ লিখেন, ‘হয়তো নিয়মের মধ্যে থেকেই অশ্বিন আউট করেছে। কিন্তু ওর একবার বাটলারকে সতর্ক করা উচিত ছিল। সেটা না করাতেই বিস্মিত।’

সাবেক এই ভারতীয় ক্রিকেটার আরও লিখেছেন, ‘এর আগেও একটা আন্তর্জাতিক ম্যাচে অশ্বিন এই কাণ্ড ঘটিয়েছিল। তবে সেবার শেবাগ (বীরেন্দর শেবাগ) সেই আবেদন পরে ফিরিয়ে নিয়েছিল।’

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এ বিশেষ আউটের নাম ‘ম্যানকাডিং’ আউট। ভারতের সাবেক ক্রিকেটার ভিনু মানকড় এই আউটের জনক। তার নামানুসারে এই নামকরণ করা হয়। মানকড় আউটের ক্ষেত্রে যে যুক্তি ব্যবহার করা হয়, সেটা হলো ব্যাটসম্যান আগে বের হয়ে রান নেওয়ার ক্ষেত্রে অবৈধ সুবিধা নেন।

Check Also

সাকিবকন্যাকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্যকারীদের ব্যবস্থা নেবে পুলিশ

বাংলাদেশ ক্রিকেট তারকা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের কন্যাকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্যকারীদের শনাক্তে …