ম্যাচ হেরে ডিআরএস বিতর্ক উসকে দিলেন কোহলি

পাঁচ ম্যাচ সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডেতেও প্রশ্ন উঠেছিল ডিসিশন রিভিউ সিস্টেম (ডিআরএস) নিয়ে। চতুর্থ ম্যাচেও তার ব্যতিক্রম হয়নি। এই ঘটনায় চুপ করে থাকেননি বিরাট কোহলি। আবারও ডিআরএস নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন ভারতীয় অধিনায়ক।

গত ১০ মার্চ, রবিবার পাঁচ ম্যাচ সিরিজের চতুর্থ ওয়ানডেতে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হয় ভারত। এদিন টস জিতে আগে ব্যাটিং করতে নেমে শিখর ধাওয়ানের ১৪৩ ও রোহিত শর্মার ৯৫ রানে ভর করে ৩৫৮ রানে বিশাল সংগ্রহই পায় ভারত। জবাবে পিটার হ্যান্ডসকম্বের ১১৭ ও উসমান খাজার ৯১ রানে ভর করে জয়ের আশা জাগিয়ে তোলে অস্ট্রেলিয়া।

এরপর অ্যাশটন টার্নারের ৪৩ বলে ৮৪ রানের ঝড়ো ইনিংসে ভর করে ৩৫৯ রানের লক্ষ্যও অজিদের জন্য মামুলি হয়ে ওঠে। এর সঙ্গে যোগ হয়ে ভারতীয় ক্রিকেটারদের বাজে ফিল্ডিং। তাতে ১৩ বল হাতে রেখে ৪ উইকেটের জয় তুলে নেয় অজিরা। এই জয়ে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ২-২ ব্যবধানে সমতা এনেছে তারা।

এদিন শেষ দশ ওভারে অস্ট্রেলিয়ার প্রয়োজন ছিল ৯৮ রান। সেখান থেকে ৪৩ বলে ৮৪ রান করে ১৩ বল বাকি থাকতে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেন টার্নার। এর আগে ডানহাতি এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানকে স্টাম্পড করার সুযোগ নষ্ট করেন মহেন্দ্র সিং ধোনির পরিবর্তে খেলা ঋষভ পান্ত।

এখানেই শেষ নয়। টেলিভিশন রিপ্লেতে দেখা যায়, ওই বলটি টার্নারের ব্যাটের কানা ছুঁয়ে পান্তের গ্লাভসে জমা হয়। কিন্তু ভারত রিভিউ চাওয়া সত্ত্বেও টার্নারকে আউট দেওয়া হয়নি। এই ঘটনায় রীতিমতো ক্ষোভে ফেটে পড়েন কোহলি। ম্যাচ শেষে টার্নারের প্রশংসার পাশাপাশি নিজেদের খারাপ ফিল্ডিং ও শিশিরকে হারের কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছেন তিনি। একইসঙ্গে ডিআরএস নিয়েও প্রশ্ন তোলেন ভারতীয় অধিনায়ক।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ওই ঘটনাটা আমাদের সবাইকে বেশ অবাক করে দিয়েছে। প্রতি ম্যাচেই এমন হচ্ছে। ডিআরএস তেমন ধারাবাহিক নয় বোধ হয়। ওখানেই ম্যাচের ছবিটা পাল্টে যায়।’

এ ছাড়া নিজেদের ফিল্ডিং নিয়ে বিরক্ত প্রকাশ করে কোহলি বলেন, ‘এদিন কিন্তু আমাদের ফিল্ডিং মোটেই ভালো হয়নি। স্টাম্পিংয়ের সুযোগও কাজে লাগাতে পারিনি আমরা। ফিল্ডারদের সুযোগগুলো কাজে লাগানো উচিত ছিল। এটা পার্থক্য গড়ে দিয়েছে।’

Check Also

অভিনয় জগতে আসতে চান না শাহরুখ পুত্র

শাহরুখ খানের বড় ছেলে আরিয়ান খান। স্নাতক করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসের ইউনিভার্সিটি অব সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া …