একটুতেই রেগে যান? মাথা ঠান্ডা রাখবে এই খাবারগুলো

এমনিতে আপনি ভালো মানুষ কিন্তু রেগে গেলে আর হিতাহিত জ্ঞান থাকে না! রাগের মাথায় কী বলেন, কী করেন তার কোনো যৌক্তিক ব্যাখ্যাও নেই আপনার কাছে। রাগের মাথায় করে ফেলা কিছু কাজের জন্য বড়সড় মাশুলও গুনতে হয়েছে আপনাকে।

রাগ ডেকে আনে নানা শারীরিক বিপদও। যখন তখন হিতাহিত জ্ঞানশূন্য রাগ মাথার উপর চাপ ফেলে। রক্তচাপ বাড়ায়। স্ট্রোকও ডেকে আনতে পারে যখন তখন। অনেকরকম চেষ্টার পরেও এই রাগকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেন না? এবার তবে জেনে নিন এমনকিছু খাবারের কথা, যেগুলো খেলে আপনার মাথা ঠান্ডা থাকবে আর হঠাৎ হঠাৎ রেগে যাওয়ার ঘটনাও ঘটবে না-

কলা: কলা এমন একটি ফল যাতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি ও পটাশিয়াম থাকে। এই দুই উপাদান স্নায়ুকে শান্ত করে। ফলে চট করে রেগে যাওয়ার প্রবণতাও কমে যায়।

আইসক্রিম: মেজাজ খারাপ থাকলে যে কোনো বিষয়েই চট করে মাথা গরম হতে পারে। তাই মেজাজ ভালো রাখতে আইসক্রিম খান। এটি থ্রমবোটনিন হরমোন ক্ষরণ করতে সাহায্য করে। এই হরমোন ক্ষরণে মন খুশি থাকে।

চকোলেট: যারা চট করে রেগে যান তারা উদ্বেগেও ভোগেন। নিজেকে নিয়ে তাদের টেনশন সবচেয়ে বেশি। তারা চকোলেট খেতে পারেন। চকোলেট স্ট্রেস হরমোনকে নিয়ন্ত্রণ করে ফিল গুড হরমোনের ক্ষরণ বাড়ায়। ফলে মাথা শান্ত থাকে। ডার্ক চকোলেট খেলে আরও ভালো ফল পাওয়া যায়।

আলু: আলুতে কার্বোহাইড্রেট ও ভিটামিন বি থাকে, যা রক্তচাপ কমায় ও স্ট্রেস কমায়। তাই ডায়েটে আলু রাখুন। ভালো ফল পাওয়ার জন্য সেদ্ধ আলু খান।

গ্রিন টি: মাথা ঠান্ডা রাখতে গ্রিন টি বেশ কার্যকরী। মেজাজ খারাপ থাকার জন্য যদি কাজে মন না দিতে পারেন, তাহলে এককাপ গ্রিন টি খেয়ে নিন। এতে মাথা ঠান্ডা হবে।

আপেল ও পিনাট বাটার: আপেলে কার্বহাইড্রেট থাকে আর পিনাট বাটার ফ্যাট-সমৃদ্ধ। এই দুইয়ের মিশেলে কমতে পারে রাগ। তাই আপেলের সঙ্গে পিনাট বাটার মাখিয়ে খেতেই পারেন।

Check Also

টক দইয়ের আশ্চর্য স্বাস্থ্যগুণ!

দইয়ে রয়েছে অসাধারণ পুষ্টিগুণ। এই দইয়ের মধ্যে আবার টক দই বেশি উপকারী। শারীরিক সমস্যার সমাধানে …