চুলের গোড়ায় ঘাম জমে? মেনে চলুন বিশেষ কিছু নিয়ম

‘চুল তার কবেকার অন্ধকার বিদিশার নিশা—’ কবি জীবনানন্দ দাশের কবিতার এই লাইন কত প্রেমপত্রেরই সাক্ষী থেকেছে। সেই পত্রজুড়ে প্রেমিকার একঢাল কালো চুল নিয়ে কত কল্পনাই না আঁকিবুকি কেটেছে! কিন্তু বাস্তব কি এখন এমনটাই?

একদমই নয়। গরম পড়তেই তাই বাড়ি থেকে দু’কদম বেরলেই উড়ন্ত ঢেউ খেলানো চুল ঘেমে নেয়ে চপচপে। কায়দা করে আবার ফ্রিঞ্জ কাটা থাকলে তো কপালের সঙ্গে তারা আষ্ঠেপৃষ্ঠে জড়িয়ে থাকে। সুতরাং সাজ-সৌন্দর্য সব কিছুকে বিদায় জানানো ছাড়া উপায় থাকে না।

কিন্তু তা বলে কি গ্রীষ্মের বিকেলে কোনও কফিশপে হোক বা শপিং মলে, আপনি নজর কাড়বেন না! সুন্দর সাজ-পোশাক সমস্তই মাটি করবেন ঘামে ভেজা চুলের জন্য! তা একেবারেই হতে দেওয়া যায় না।

তাই দেখে নিন গরমে স্ক্যাল্পকে কী ভাবে শুকনো রাখবেন, যাতে চুলও ঘোর গরমে আয়ত্তে থাকবে নিজের। চুলের যত্নের সে সব নিয়মকানুন জানেন?

► সপ্তাহে ২-৩ দিন গোলাপ জল দিয়ে মাথা ধুয়ে নিন। গোলাপ জল ঘাম নিয়ন্ত্রণ করে। স্ক্যাল্প ঘেমে গিয়ে অনেক সময়ে দুর্গন্ধ বেরয়। এ ক্ষেত্রে অবশ্যই গোলাপ জল সেই দুর্গন্ধ আটকাতে সক্ষম। ঠান্ডা গোলাপ জল ব্যবহার করলে আরও ভাল ফল পাবেন।
► গরমে হেয়ার স্ট্রেটনার, হিট ড্রায়ার, ইত্যাদি স্টাইলিং মেশিন কম ব্যবহার করুন। এই মেশিনগুলি ব্যবহার করলে স্ক্যাল্প অয়েলি হয়ে পড়ে। এই ধরনের স্টাইলিং মেশিন ব্যবহারে রোমকূপে খুশকির সমস্যাও হয়।
► এসেনশিয়াল অয়েল ব্যবহার করুন। স্ক্যাল্পকে সুস্থ-সতেজ রাখতে সাহায্য করে এসেনশিয়াল অয়েল। যে কোনও সাধারণ তেলের সঙ্গে ২-৩ ফোঁটা এসেনশিয়াল অয়েল মিশিয়ে স্ক্যাল্পে মালিশ করে তার পরে ধুয়ে নিন। এতে ঘাম কম হবে।
► হেয়ার মাস্ক ব্যবহার করুন। বাড়িতে নিজে হেয়ার মাস্ক তৈরি করে ব্যবহার করুন। এতে চুল সুস্থ ও পরিষ্কার থাকবে। চুলের গোড়া পরিষ্কার থাকলে ঘামের সমস্যাও কম হবে।
► শ্যাম্পু করার আগে চুলের গোড়ায় ভিনিগার লাগিয়ে নিন। ভিনিগার মরা কোষগুলিকে দূর করে ফলে স্ক্যাল্পে ঘাম বসতে পারে না।
► পিপারমিন্ট অয়েলও শ্যাম্পু করার আগে ব্যবহার করতে পারেন। চুলকে সুস্থ ও সতেজ রাখে এবং গোড়াতে ঘাম বসে না।
► বেশি ক্ষণ ধরে শ্যাম্পু করবেন না। বেশি বেলায় শ্যাম্পু করবেন না। শ্যাম্পু করে অবশ্যই ভাল করে চুল শোকান। গোড়া ভিজে অবস্থায় বেরবেন না। পানির সঙ্গে ঘাম মিশে চুল আরও ভিজে যাবে।
► খুব অয়েলি স্ক্যাল্প হলে একদিন অন্তর শ্যাম্পু করুন। তাড়াহুড়ো থাকলে ড্রাই শ্যাম্পু ব্যবহার করুন। তবে নিয়মিত ড্রাই শ্যাম্পু ব্যবহার করবেন না।
► গরমে ঘাম যাদের বেশি হয় তাঁরা মাথার বিভিন্ন অ্যাকসেসরিজ ব্যবহার করতে পারেন। ব্যান্ডানা বা স্কার্ফ ব্যবহার করুন। এতে চুল ঘেমে গেলেও বোঝা যাবে না। খোলা চুলে কাঠফাটা দুপুরে বেরবেন না। গ্রীষ্মের ফ্যাশনে পনিটেল, বান বা বিভিন্ন ধরনের বিনুনি মানানসই।

Check Also

এক তেলেই পাকা চুল কালো হয়!

পরিবেশের দূষণ, খাদ্যাভ্যাস, অত্যাধিক মানসিক চাপ ও অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপনের ফলে অল্প বয়সেই চুল পেকে যেতে …