মেয়ে ভেবে ছেলের সঙ্গে রাতভর প্রেমালাপ করতেন আফ্রিদি!

প্রায় এক মাস রাতভর কথা হওয়ার পর আফ্রিদি ওই মেয়ের সঙ্গে দেখা করার সিদ্ধান্ত নেন।

ক্রীড়াঙ্গনের অনেক তারকাই আত্মজীবনীমূলক বই লিখেন। খেলোয়াড়ি জীবনের বিভিন্ন ঘটনা ও ব্যক্তিগত জীবনের টুকিটাকি ছাপার অক্ষরে তুলে ধরেন পাঠকের জন্য। এই তালিকায় নাম লিখিয়েছেন শহীদ আফ্রিদিও।

সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে পাকিস্তানি সাবেক এই অধিনায়কের আত্মজীবনীমূলক বই ‘গেম চেঞ্জার’। এই বইয়ে একের পর এক বোমা ফাটাচ্ছেন আফ্রিদি। নিজের আসল বয়স, গৌতম গম্ভীর ও জাভেদ মিয়াঁদাদ সম্পর্কে মূল্যায়ন, ম্যাচ ফিক্সিং কাণ্ড নিয়ে রীতিমত ঝড় তুলে ফেলেছে আফ্রিদির এই আত্মজীবনী।

‘গেম চেঞ্জার’ নামক আত্মজীবনীর বরাত দিয়ে এবার জানা গেল আফ্রিদির ব্যক্তিগত জীবনের কথাও। খেলোয়াড়ি জীবনের এক পর্যায়ে মেয়ে ভেবে এক ছেলের সঙ্গে টানা একমাস রাতভর কথা বলেছেন তিনি!

আফ্রিদি বরাবরই হাস্যোজ্জ্বল একজন মানুষ। যেকোনো আসর জমিয়ে দিতে পারেন। যেখানেই যেতেন মধ্যমণি হয়েই থাকতেন তিনি। আত্মজীবনীতে এই তারকা অলরাউন্ডার জানান, ৯০’র দশকে অস্ট্রেলিয়ায় গিয়ে এক পার্টিতে এক মেয়ে তার নাম্বার নেয়। পরে টানা একমাস তার সঙ্গে ফোনে কথা হয়।

এ বিষয়ে আফ্রিদি তার আত্মজীবনীতে লিখেছেন, ‘বিয়ের আগে একটি মেয়ে আমাকে প্রায়ই ফোন দিত। তার কণ্ঠ ছিল বড্ড সুরেলা ও মিষ্টি। তখন মোবাইল ফোন মাত্র পরিচিতি পেয়েছে এবং খুব খরুচেও ছিল। তবুও ওই মেয়ের কণ্ঠ শোনার জন্য অঢেল টাকা খরচ করেছিলাম।’

প্রায় এক মাস রাতভর কথা হওয়ার পর আফ্রিদি ওই মেয়ের সঙ্গে দেখা করার সিদ্ধান্ত নেন। মেয়েও রাজি হয়। একদিন চলে আসেন আফ্রিদির হোটেলে। তবে এরপর যা ঘটেছে তাতে হৃদয় ভেঙ্গে যায় আফ্রিদির।

বিষয়টি লজ্জাজনক বলে আখ্যায়িত করে আত্মজীবনীতে আফ্রিদি লিখেছেন, ‘বেল বাজার পর দরজা খুলে তাকিয়ে দেখি একটি ছেলে গোলাপ ফুল হাতে দাঁড়িয়ে রয়েছে। যখন ছেলেটি বলল, ওই মেয়েলী কণ্ঠের অধিকারী সেই এবং তার সঙ্গেই টানা একমাস কথা বলেছি তখন আমি খুবই ধাক্কা খেয়েছিলাম।

Check Also

সন্তানসম্ভবা রুবেলের স্ত্রী, পাশে থাকতে ছুটি

২০১৫ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে রুবেল হোসেনের করা দুটি বল তার ক্রিকেট জীবনের টার্নিং পয়েন্ট। বাংলাদেশের …