যে জুস নিয়মিত সেবনে বয়স বাড়বে না ত্বকের

গ্রীষ্মকাল এসে গিয়েছে। এই সঙ্গে আইসক্রিম, শরবত, কুলফি ধীরে ধীরে আমাদের বাড়ির ফ্রিজের অনেকটা জায়গা দখল করে নিচ্ছে। তবে এই মৌসুমেরর সবকিছুই যে এমন মিষ্টি তা নয়। আপনার নরম আদুরে ত্বকের উপরে গরমের প্রভাব কিন্তু ততটা মিষ্টি মধুর হয় না। তাই এ সময় ত্বকের অতিরিক্ত য্ত্ন প্রয়োজন হয়। আর ত্বক যদি তৈলাক্ত হয় তা হলে তো পিম্পল, অ্যাকনে, র‍্যাশ প্রচন্ড বেড়ে যায় এই সময়। এই সমস্যার সমাধানে শুধুমাত্র বাইরে থেকে ত্বকের যত্ন নেওয়া হয় যথেষ্ট নয়, এ জন্য প্রয়োজন শরীরের ভেতর থেকে যত্ন নেওয়া। আর সে জন্য নিয়মিত মৌসুমী ফল-সবজি পরিমাণ মতো খেতে হবে। যাতে ত্বকের ঔজ্জ্বল্য বজায় থাকে।

আয়ুর্বেদ এর মতে আমলা বা আমলকীর মধ্যে এমন উপাদান বর্তমান যা আপনার ত্বকের স্বাভাবিক ঔজ্জল্য ফেরাতে পারে। ভারতবর্ষে ঐতিহ্যবাহী রূপচর্চার মধ্যেও আমলকি চিরকালই পছন্দের তালিকার শীর্ষে থেকে এসেছে। বাড়িতে আমলকি দিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করেও অনেকে ব্যবহার করেন। সাম্প্রতিক বহু গবেষণাও দেখিয়েছে যে আমলকি মধ্যে থাকা ভিটামিন সি রুক্ষ শুষ্ক ত্বকের মধ্যে কোলাজেন বৃদ্ধি করে তার বয়স বৃদ্ধি আটকাতে পারে এবং উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনতে পারে।

আরেকটি সহজ উপায় হলো আমলকি জুস নিয়মিত খাওয়ার অভ্যাস করা। তবে আমলকির স্বাদ একটু কষাটে, তাই এর সঙ্গে যদি খানিকটা মধু মিশিয়ে নেওয়া যায় এই মিশ্রণটি ত্বকের উপরে জাদু করতে পারে। মধু এবং আমলকি উভয়ের মধ্যে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে ফলে ত্বকের যে কোনও ক্ষয়ক্ষতি আটকাতে পারে। পিগমেন্টেশন কমিয়ে দেয়। যে কোনও দাগছোপ অনেক কম চোখে পড়ে।

আমলা মধুর জুসের রেসিপি

১. পাঁচ থেকে সাতটি আমলকি ভালো করে ধুয়ে কুচিয়ে নিন।

২. কুচনো আমলকিগুলো মিক্সিতে পানি দিয়ে বেটে নিন।

৩. একেবারে মসৃন ভাবে বাটতে হবে। প্রয়োজনে সামান্য পানি মেশাতে পারেন।

৪. এবার এর মধ্যে সামান্য মধু মিশিয়ে খেয়ে ফেলুন মিশ্রণটি।

নিয়মিত আমলকির জুস খেলে আপনার ত্বক হয়ে উঠবে রৌদ্রোজ্জ্বল দিনের মতোই তেজোদীপ্ত।

Check Also

ডাব দিয়ে রূপচর্চা করবেন যেভাবে

এই গরমে ঠান্ডা একগ্লাস ডাবের পানি জুড়িয়ে দিতে পারে আপনার প্রাণ। তেমনই ডাবের শাঁস উপকার …