কফির দাগ থেকে দাঁত বাঁচাতে…

আপনার ঝকঝকে দাঁতকে কফির দাগ থেকে রক্ষা করতে এ জনপ্রিয় পানীয় বর্জনের দরকার নেই। আর বর্জন করবেন কেন? সীমিত মাত্রায় কফি পানে যে অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা পাওয়া যায় তা স্বাস্থ্য সচেতন মানুষের অজানা নয়। কিন্তু সমস্যা হলো, কফি দাঁতে দাগ সৃষ্টি করে, যার ফলে মুখের সৌন্দর্য বিঘ্নিত হয়। দুশ্চিন্তা করবেন না, কিছু সহজ পরামর্শ মেনে চললে আপনার সুন্দর উজ্জ্বল দাঁতগুলো চকচকে থাকবে।

দুধ মেশান কফিতে
নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি কলেজ অব ডেন্টিস্ট্রির সহযোগী অধ্যাপক ডিনাইজ এস্তেফান বলেন, কফিতে দুধ মিশিয়ে কফির দাগ পড়ার সম্ভাবনাকে নষ্ট করতে পারেন। ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অব ডেন্টাল হাইজিংয়ে প্রকাশিত একটি গবেষণায় পাওয়া গেছে, দুধের প্রধান প্রোটিন ক্যাসেইন চায়ের ট্যানিনে লেগে থেকে দাঁতে দাগ পড়া প্রতিরোধ করে। কফিতেও অল্প পরিমাণে ট্যানিন থাকে, তাই কফি পানকারীরাও এ পানীয়তে দুধ মিশিয়ে উপকার পেতে পারেন। সর্বোত্তম ফলের জন্য প্রাণীজ দুধ ব্যবহার করুন, এক্ষেত্রে সয়া মিল্ক কার্যকর নয়।

পানি খান
কফি পানের পর বেশিরভাগ মানুষ পানি পান করেন না, যেহেতু এটি নিজেই পানীয়। কিন্তু কফি পানের পর এক গ্লাস পানি পান করলে দাঁতে দাগ সৃষ্টিকারী লিকুইড দ্রুত নিষ্কাশিত হবে। যার ফলে হারাবে না আপনার দাঁত সৌন্দর্য। এছাড়া পর্যাপ্ত পানি পান হলো সারাদিন পানিশূন্যতায় ভোগবেন না।

একটু দ্রুত পান করুন
আপনি পাঁচ মিনিটে এক কাপ কফি পান করেন, কিন্তু একই পরিমাণ কফি পান করতে আপনার সহকর্মীর লাগে দু’ঘন্টা। উভয়ের মধ্যে তুলনা করলে আপনার দাঁতে দাগ কম পড়বে। গবেষণামতে, যেসব লোকের কফি পান করতে বেশি সময় লাগে তাদের দাঁতে দাগ পড়ার সম্ভাবনা বেশি।

প্রয়োজনে স্ট্র
স্ট্র ব্যবহারের মাধ্যমে পান করলে তরল আপনার দাঁতের সংস্পর্শে কম আসবে। এর মানে হলো, কফির স্বাদও নিতে পারবেন, আবার দাঁতে দাগ পড়ারও ভয় নেই। কফি অথবা অন্যান্য মিষ্টি পানীয় পানের জন্য স্বাস্থ্যবান্ধব স্ট্র ব্যবহারের চেষ্টা করুন।

কেন কফি খেলে দাঁতে দাগ পড়ে?
এ প্রসঙ্গে বলতে গেলে আগে দাঁতের অন্যতম উপাদান এনামেল সম্পর্কে বলতে হবে। এনামেল হলো দাঁতের বাইরের স্তর যা আপনার দাঁতের অন্যান্য স্তরকে সুরক্ষিত রাখে। দাঁতের এই এনামেলে মাইক্রোস্কোপিক গ্যাপ বা আণুবীক্ষণিক ফাঁক থাকে। অর্থাৎ এনামেলে যে ফাঁকগুলো থাকে তা অণুবীক্ষণযন্ত্র ছাড়া খালি চোখে দেখা যায় না। যখন খাবার ও পানীয়ের কণা এসব ফাঁকে আটকে যায়, তখন দাগ পড়ে আর দাঁতের বাইরের স্তর বিবর্ণ হয়ে যায়। এসব কণা আপনার এনামেলের ফাঁকে যত বেশি সময় থাকবে, তত বেশি ক্ষতি হতে থাকবে। কারণ এ কণাগুলো দাঁতের অন্যান্য স্তরকেও ক্ষতিগ্রস্ত করতে থাকে।

এস্তেফান বলেন, আপনি যত বেশি কফি পান করবেন আপনার দাঁতে দাগ পড়ার সম্ভাবনা তত বেড়ে যাবে, যদি আপনি এ দাগ প্রতিরোধের জন্য কিছুই না করেন। সময় পরিক্রমায় এ দাগ গভীর থেকে আরো গভীরে চলে যাবে। এ দাগকে ইনট্রিনসিক স্টেইন বলে, যা পরিষ্কার করা অনেক কঠিন।

Check Also

কোন গায়ের রঙে কেমন লিপস্টিক মানানসই

খাবারের ক্ষেত্রে যেমন লবণ, তেমনই নারীর সাজের ক্ষেত্রে লিপস্টিক। চমৎকারভাবে সাজগোজ করেও শুধু একটুখানি লিপস্টিক …