পূজার সাজে চুলে থাকুক ফুল

বছরের এই সময়টা সাধারণত উৎসবমুখর থাকে। পূজা উৎসব শুরু হয়ে গেছে। আসছে শীত। শীতের সময়টাতে বিয়ের ধুম লাগে। তবে এখন চলছে পূজা নিয়ে আনন্দ উৎসব। ঢাক-ঢোল আর মণ্ডপে মণ্ডপে মূর্তির রং জানান দিচ্ছে শারদীয় দুর্গাপূজার আগমন।

এ পূজা বাঙালি হিন্দুদের মহা-উৎসব। পূজা মানেই নতুন পোশাক, সাজ আর বাহারি খাবারের আয়োজন। যেহেতু এখনকার সময়টা একটু গরম আর ভ্যাপসা, তাই পোশাক নির্বাচন করার ক্ষেত্রে সুতি আর তাঁতে বোনা টাঙ্গাইলের শাড়ি বেছে নিতে পারেন। আপনি যে পোশাকই পরুন না কেন, তা যেন হয় আরামদায়ক। দশমীতে প্রতিমা বিসর্জন দিতে সাদা শাড়িতে লাল পাড় যেন আপনাকে দৃষ্টি নন্দন করে, সে জন্য সাজের দিকে একটু বেশি খেয়াল দিতে হয়।

পোশাকের সঙ্গে সাজটা হতে হবে নিখুঁত। আর নিখুঁত সাজের জন্য আপনাকে একটু সচেতন হতে হবে। পূজার সাজের বিষয়ে ওমেন্স ওয়ার্ল্ড-এর পরিচালক ফারনাজ আলম বলেন, ‘মেকআপ করার আগে আপনার ত্বক কেমন ধরনের, সে বিষয়ে গুরুত্ব দিতে হবে। ত্বক তৈলাক্ত হলে মেকআপের আগে এক টুকরো বরফ ঘষে নিতে পারেন। তাহলে মেকআপ দীর্ঘস্থায়ী হবে। আর স্বাভাবিক ত্বক হলেও বরফ ঘষে নিতে পারেন। তারপর প্রাইমার, কনসিলার, ফাউন্ডেশন দিয়ে মেকআপ বসিয়ে নিতে পারেন। আই মেকআপের সময় মোটা করে আইলাইনার, মাশকারা, আইল্যাশ দিয়ে চোখটাকে সাজিয়ে নিতে পারেন। আবার স্মোকি লুকও দিতে পারেন। ঠোঁটে লাগাতে পারেন গাঢ় লাল লিপস্টিক। যেহেতু পূজা, তাই সাজটাও পোশাকের সঙ্গে ভারী হতে হবে। আর গয়না নির্বাচনের ক্ষেত্রে ভারী বা হালকা দুটোই পরতে পারেন।

এথনিক ও ফাঙ্কি গয়নাগুলো পূজার সাজে বেশ মানাবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘পিতল ধাতু ও অন্যান্য ধাতব দ্রব্য দিয়ে বানানো গয়নাগুলো চোখে পড়ার মতো। চুল বাঁধার ক্ষেত্রে পেছনে বড় খোঁপা করতে পারেন, সঙ্গে লাল বা সাদা ফুল দিয়ে খোঁপাকে সাজিয়ে নিতে পারেন। আবার ব্লো ড্রাই করে ছেড়ে দিলেও বেশ মানাবে। তবে মনে রাখতে হবে, স্টাইল বলেন বা মেকআপ—দুটোই নির্ভর করে আপনার ব্যক্তিত্ব আর আবহাওয়ার ওপর। যখনই কোনো স্টাইলে নিজেকে সাজাতে চাইবেন, নিজের রুচি ও পছন্দ অনুযায়ী মেকআপ করবেন।’

রাতের সাজগুলোতে গর্জিয়াস লুক আনতে চোখে গোল্ডেন, সিলভার বা কপার গ্লিটার ব্যবহার করতে পারেন বলে পরামর্শ তাঁর।

Check Also

৫ মিনিটের সাজ!

অফিসের অনুষ্ঠান, এদিকে কাজে সাহায্য করার লোকও আসেনি। সকালে উঠে নাস্তা বানানো। নিজে তৈরি হয়ে …