ওজন কমাতে চান? ৫ ফল খান

স্বাস্থ্যকর খাবারের মধ্যে ফল হলো শীর্ষস্থানীয়। তাই নয় কি? এর কারণ হলো, ফলে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন, মিনারেল ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট।

তবে আপনি কি জানেন, কিছু ফল রয়েছে, যেগুলো ওজন কমাতে কার্যকর? প্রতিদিন এসব ফল খেলে ওজন কমতে সাহায্য হয়। ওজন নিয়ন্ত্রণে পাঁচটি ফলের নাম জানিয়েছে ইটাইমস।

১. ব্লুবেরি

ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নাল দিয়ে পরিচালিত এক গবেষণায় দেখা যায়, ব্লুবেরির মধ্যে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ফ্ল্যাভেন-৩-ওলস, অ্যানথোসায়ানিন, ফ্ল্যাভোনয়েড ও পলিমারস ওজন কমাতে কাজ করে। এক লাখ নারী ও পুরুষের মধ্যে এই গবেষণা করা হয়।

এক কাপ ব্লুবেরির মধ্যে রয়েছে ১০ মিলিগ্রাম অ্যানথোসায়ানিন। ওজন কমাতে প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় এক কাপ ব্লুবেরি রাখতে পারেন।

২. আপেল

আপেলের মধ্যে রয়েছে আঁশ ও ফ্ল্যাভোনয়েড পলিমার। এটি ওজন কমানোর জন্য সঠিক ফল। খোসাসহ আপেল খেলে প্রচুর আঁশ, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পাওয়া যায়। এ ছাড়া এটি রক্তের সুগার নিয়ন্ত্রণেও কাজ করে। এতে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ হয়।

৩. নাশপাতি

ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণায় বলা হয়, নাশপাতি ওজন বাড়া প্রতিরোধ করে। এই ফলটি ফ্ল্যাভোনয়েড পলিমারের চমৎকার উৎস। প্রতি ১৩৮ মিলিগ্রাম বাড়তি ফ্ল্যাভোনয়েড পলিমার ওজন কমাতে কার্যকর। এ ছাড়া নাশপাতির খোসার মধ্যে থাকা আঁশ অনেকক্ষণ পেট ভরা অনুভব করায়। তাই ওজন কমাতে চাইলে খাদ্যতালিকায় এ ফলটি রাখুন।

৪. স্ট্রবেরি

ব্লুবেরির মতো স্ট্রবেরিও অ্যানথোসায়ানিনের চমৎকার উৎস। এটিও ওজনকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে কার্যকর। অনেকে ভাবেন, ফল হলো মিষ্টিজাতীয় খাবার। আর তাই এটি ওজন বাড়ায়। তবে নাশপাতি, আপেল, স্ট্রবেরির মতো ফলগুলোতে কেবল মিষ্টিই কম থাকে না, উচ্চ পরিমাণ ফ্ল্যাভনয়েডও থাকে। আর এ কারণে এসব ফল ওজন কমাতে খুব উপকারী।

৫. মরিচ

মরিচকে আমরা সাধারণত সবজি হিসেবেই জানি। তবে মজার বিষয় হলো, মরিচ কিন্তু সবজি নয়, ফল। এটিও ওজনকে নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। মরিচের মধ্যে থাকা ক্যাপাচিন শ্বেত কণিকাকে শক্তিক্ষয়ী বাদামি চিনিতে পরিণত হতে উদ্বুদ্ধ করে। ইঁদুরের ওপর করা এক গবেষণায় এই ফলাফল পাওয়া যায়।

Check Also

পেটের মেদ কমায় যেসব খাবার

শরীরে মেদ জমলে চলাফেরায় যেমন কষ্ট হয়, তেমনি সৌন্দর্য নষ্ট হয়। বিশেষ করে পেটে মেদ …