Advertisements

গুণে ভরা সোনালি দুধ

milk-5e046d0c0e0b4 গুণে ভরা সোনালি দুধ

বাঙালিদের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় পুষ্টিকর এবং সুস্বাদু খাবার হিসেবে জনপ্রিয় হচ্ছে দুধ। এই দুধের সঙ্গে হলুদ, দারুচিনি কিংবা আদা মিশিয়ে তৈরি করতে পারেন গোল্ডেন মিল্ক বা সোনালি দুধ। সোনালি দুধ হাজার বছর ধরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এবং অসুস্থতা দূর করতে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

সোনালি দুধের গুনাগুন সম্পর্কে পুষ্টিবিদরা যা বলেন-

ভালো ঘুম হয়

যাদের ঘুমের সমস্যা রয়েছে তারা উষ্ণ দুধের সঙ্গে হলুদ মিশিয়ে পান করলে উপকার পাবেন। দুধ মেলাটোনিন তৈরি করে ভালো ঘুম হতে সাহায্য করে। এছাড়া ঘুমন্ত অবস্থায় শরীরের ক্ষয় পূরণে সাহায্য করে।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

সোনালি দুধ শরীরের ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে। বিশেষ করে এটি প্রোস্টেট ক্যান্সার প্রতিরোধ করে এবং ক্যান্সার সৃষ্টিকারী কোষকে নষ্ট করে।

হাড়ের ব্যথা দূর

এই দুধ শক্তিশালী প্রদাহ-বিরোধী হিসেবে কাজ করে। হলুদে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের উপস্থিতির কারণে হাড়ের প্রদাহ ও ব্যথা দূর হয়।

স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করে

সোনালি দুধ মস্তিষ্কের জন্য উপকারী। মস্তিষ্কে অক্সিজেন সরবরাহ বাড়িয়ে স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করে। এছাড়া এটি আলঝেইমার্স এবং পার্কিনসন’স রোগীদের সুস্থ হতে সহায়তা করে।

বিষণ্নতা দূর করে

এটি বিষণ্নতা দূর করে মনকে প্রফুল্ল রাখতে সহায়তা করে।

হার্ট ভালো রাখে

যাদের হার্টের সমস্যা রয়েছে তারা সোনালি দুধ খেলে উপকার পাবেন। এটি নিয়মিত খেলে খারাপ কোলেস্টোরেল দূর করে ভালো কোলেস্টোরেল উৎপন্ন করে হার্ট ভালো রাখে।

Advertisements

রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে

গবেষণায় দেখা যায়, এটি রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে এবং উন্নত সংবেদনশীলতা তৈরি করে শরীরকে সুস্থ রাখে।

অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টিভাইরাল এবং অ্যান্টিফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্য রয়েছে

ইনফেকশন জাতীয় বিভিন্ন রোগ থেকে শরীরকে সুস্থ রাখতে সোনালি দুধের বিকল্প নাই। এর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টিভাইরাল এবং অ্যান্টিফাঙ্গাল গুন রয়েছে।

অস্টিওপেনিয়া এবং অস্টিওপোরোসিস দূর করে

সোনালি দুধে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ডি রয়েছে। যা অস্টিওপেনিয়া এবং অস্টিওপোরোসিস রোগ থেকে শরীরকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

ত্বক উজ্জ্বল করে

বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দূর করে ত্বককে সতেজ ও সজীব করে তোলে সোনালি দুধ। নিয়মিত এই দুধ খেলে ত্বক হয় তারুণ্যদীপ্ত।

যকৃত ভালো রাখে

সোনালি দুধ শরীরের গুরুত্বপূর্ণ এনজাইমের উৎপাদন বাড়াতে সাহায্য করে। এটি দেহের সমস্ত বিষাক্ততা দূর করে এবং রক্ত প্রবাহকে বাড়িয়ে যকৃতের কার্যক্ষমতা বাড়াতেও সাহায্য করে।

সোনালি দুধ বানানোর রেসিপি

যা যা লাগবে-

দুধ এক কাপ, হলুদের গুঁড়া ১ টেবিল চামচ, গোলমরিচ গুঁড়া আধা চা চামচ, বিশুদ্ধ পানি ২ টেবিল চামচ।

যেভাবে বানাবেন-

একটি পাত্রে সব উপকরন একসঙ্গে মিশিয়ে মাঝারি আঁচে চুলায় দিয়ে নাড়তে যতক্ষণ না ঘন পেস্ট তৈরি হয়। ঘন হয়ে এলে চুলা থেকে নামিয়ে ঠাণ্ডা করে এয়ার টাইট বক্সে ফ্রিজে রেখে দিন।এই পেস্ট ফ্রিজে রাখলে ২ সপ্তাহের মত ভালো থাকে।

সোনালি দুধ সকালে ঘুম থেকে উঠে এবং রাতে ঘুমাতে খাওয়ার সময় খেলে বেশি উপকার পাবেন।

Advertisements

Check Also

কেমন দাম পড়বে করোনা ভ্যাকসিনের

প্রতিযোগিতায় থাকা করোনার ভ্যাকসিনের মধ্যে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি কার্যকারিতা পাওয়া গেছে যুক্তরাষ্ট্রের মডার্না ও …