করোনার লক্ষণ নিয়ে স্কুলছাত্রসহ ৫ মৃত্যু

নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণ নিয়ে পাঁচ জেলায় স্কুলছাত্রসহ পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। রাজবাড়ী থেকে দুই রোগীকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে রাজবাড়ী থেকে দুজনকে ঢাকায় পাঠানো হয়। আইসোলেশনে নেওয়া হয়েছে চিকিৎসকসহ বেশ কয়েকজনকে। ঠাকুরগাঁও, সিলেট ও জয়পুরহাটে নমুনা সংগ্রহ করা ১১ রোগীর শরীরে করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব ধরা পড়েনি। দৈনিক কালেরকণ্ঠের স্থানীয় প্রতিনিধিরা জানিয়েছেন বিস্তারিত।

দোহার-নবাবগঞ্জ (ঢাকা) : সর্দি-কাশি ও জ্বরে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার নবাবগঞ্জের ৫৮ বছর বয়সী এক ব্যক্তি গত সোমবার রাতে মারা গেছেন। তবে তিনি করোনায় আক্রান্ত ছিলেন কি না তা নিশ্চিত নয়। এ ছাড়া ৮৫ বছর বয়সী আরেক ব্যক্তি নবাবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আইসোলেশন বিভাগে তিন দিন ধরে ভর্তি রয়েছেন। তাঁর চিকিৎসা চলছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, গত সোমবার বিকেলে সর্দি-কাশি, জ্বর ও প্রচণ্ড শ্বাসকষ্ট নিয়ে ওই ব্যক্তি এখানে ভর্তি হন। তাঁর মধ্যে করোনা সংক্রমণের লক্ষণ থাকায় এবং রোগীর অবস্থার অবনতি হওয়ায় উত্তরায় কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে রাতে তাঁর মৃত্যু হয়। ওই হাসপাতালেই তাঁর নমুনা পরীক্ষা করা হবে।

টাঙ্গাইল : মধুপুর উপজেলার দক্ষিণ মহিষমারা গ্রামে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণ নিয়ে গতকাল এক যুবক মারা গেছেন। মধুপুর থানার ওসি তারিক কামাল জানান, ওই যুবক টেক্কার বাজার এলাকার হাসান আলীর ছেলে। তিনি গাজীপুরের কোনাবাড়ীতে ফেরি করে পান বিক্রি করতেন। সেখান থেকে চার দিন আগে তিনি সর্দি-কাশি ও জ্বর নিয়ে বাড়ি আসেন। তাঁর মৃত্যুর পর ওই বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে। ওই যুবকের সংস্পর্শে যাওয়া ব্যক্তিদের তালিকা হচ্ছে। তাদের হোম কোয়ারেন্টিনে নেওয়া হবে।

সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ওয়াহীদুজ্জামান বলেন, ওই যুবকের মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে ঢাকায় আইইডিসিআরে যোগাযোগ করা হয়েছে। তাঁর নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানো হবে।

জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, প্রশাসন থেকে সার্বক্ষণিক খোঁজ-খবর রাখা হচ্ছে। ওই যুবকের বাড়ির লোকজনের বাজারসহ সব বিষয় তদারকি করা হবে।

ঝালকাঠি : গতকাল মঙ্গলবার সকালে রাজাপুরে জ্বর ও শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত হয়ে আবদুল হাকিম হাওলাদার (৬০) নামে এক দিনমজুরের মৃত্যু হয়েছে। তিনি উপজেলার মঠবাড়ী ইউনিয়নের সাউথপুর গ্রামের মৃত মৌজে আলী হাওলাদারের ছেলে।

নিজ বাড়িতে মারা যাওয়া আবদুল হাকিমের দেহে করোনাভাইরাস সংক্রমণের লক্ষণ থাকায় স্থানীয় জনমনে এক ধরনের আতঙ্ক বিরাজ করছে। স্থানীয়রা জানায়, এক সপ্তাহ আগে হাকিমের জ্বর হয়। পরে স্বজনরা উপজেলা সদরের একটি ক্লিনিকে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে বাড়ি চলে আসে। চিকিৎসকের দেওয়া ব্যবস্থাপত্রে জ্বর ও শ্বাসকষ্টের ওষুধ চলছিল।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবুল খায়ের মাহমুদ বলেন, ‘মৃত্যুর খবর শুনে ঘটনাস্থলে গেছি। মৃত্যুর কারণ পরীক্ষা না করে বলা সম্ভব নয়।’

পিরোজপুর : জেলার ভাণ্ডারিয়ায় সর্দি ও জ্বরে আক্রান্ত হয়ে সবুজ হাওলাদার (১৮) নামে এক স্কুলছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। করোনা সংক্রমণে মৃত্যু সন্দেহে প্রশাসন ওই ছাত্রের বাড়িসহ আশপাশ এলাকায় লকডাউন ঘোষণা করেছে। সবুজ করোনায় আক্রান্ত কি না তা নিশ্চিত হতে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

উপজেলার দক্ষিণ ধাওয়া গ্রামে গতকাল দুপুরে নিজ বাড়িতে মারা যাওয়া সবুজ দিনমজুর আব্দুল আজিজ হাওলাদারের ছেলে। সে এ বছর এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে।

খবর পেয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান মিরাজুল ইসলাম, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. এইচ এম জহিরুল ইসলামসহ প্রশাসনের একটি দল ওই বাড়িতে যায়।

সিলেট : শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালের আইসোলেশন সেন্টারে জ্বর ও শ্বাসকষ্টে এক কিশোরীর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল দুপুর ২টার দিকে তার মৃত্যু হয়। এর আগে সকাল সাড়ে ১১টার দিকে তাকে ওই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার বাড়ি জেলার বালাগঞ্জে।

সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. ইউনুছুর রহমান জানান, ওই কিশোরী দুই মাস আগে থেকেই অসুস্থ ছিল। শ্বাসকষ্ট ও জ্বরে ভুগছিল। সেই সঙ্গে পুরো শরীর ফোলা ছিল। মেয়েটি বা তার পরিবারে কোনো বিদেশফেরত বা তাদের সংস্পর্শে আসার ইতিহাস পাওয়া যায়নি। মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে এবং জানাজাও স্বাভাবিক নিয়মে হবে।

এদিকে সিলেট শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে আইসোলেশনে থাকা তিনজনের শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়েনি। গতকাল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা সুশান্ত কুমার মহাপাত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেন। উল্লিখিত তিনজনের মধ্যে একজন ঢাকার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, একজন স্পেনপ্রবাসী এবং আরেকজন নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত।

সিলেট বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় হোম কোয়ারেন্টিনে নেওয়া হয়েছে আরো ২৮ জনকে। তাদের মধ্যে সুনামগঞ্জে ১৪, হবিগঞ্জে ১০ ও মৌলভীবাজারে চারজন রয়েছে। তবে সিলেট জেলায় নতুন করে কাউকে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়নি।

রাজবাড়ী : সদর হাসপাতালে করোনাভাইরাস আক্রান্ত সন্দেহে আইসোলেশন ইউনিট থেকে ৬০ বছর বয়সী এক সবজি বিক্রেতা ও ১৭ বছর বয়সী এক ছাত্রকে গতকাল ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

জানা গেছে, মঙ্গলবার গতকাল সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সর্দি, জ্বর, কাশি, শ্বাসকষ্ট ও শরীরে ব্যথা নিয়ে সদর হাসপাতালে ভর্তি হন এক সবজি বিক্রেতা। সার্বিক অবস্থা বিবেচনা করে তাঁকে ঢাকায় কুর্মিটোলা হাসপাতালে পাঠানো হয়। প্রায় একই ধরনের উপসর্গ থাকায় এক ছাত্রকেও ঢাকায় পাঠানো হয়।

এদিকে সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্র জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরো ছয়জন বেড়ে রাজবাড়ীতে ৬৩৩ জন হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছে। একই সময়ে ছাড়পত্র পেয়েছে ৪৮৩ জন।

চিকিৎসক আইসোলেশনে

বরগুনা : বরগুনার আমতলী উপজেলার কুকুয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার ডা. মাহমুদ মোরশেদ আল মামুনকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে আইসোলেশনে ভর্তি করা হয়েছে। সর্দি-কাশি ও জ্বর নিয়ে তিনি গত সোমবার আইসোলেশনে ভর্তি হন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রশাসক ডা. শংকর প্রসাদ অধিকারী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. সোহরাব উদ্দিন বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে আমরা তাঁকে সাধ্যমতো চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছি।’

সিভিল সার্জন ডা. হুমায়ূন শাহীন খান জানান, ডা. মোরশেদের নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

কেশবপুরে তিনজন আইসোলেশনে

যশোর : জ্বর ও সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হওয়ায় যশোরের কেশবপুরে এক পরিবারের তিন সদস্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আইসোলেশনে ভর্তি হয়েছে। একই সঙ্গে আইইডিসিআরের পক্ষ থেকে গৃহকর্তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলার পাঁচপোঁতা গ্রামের মিলন সিংহকে জ্বর ও সর্দি-কাশির কারণে গত সোমবার দুপুরে দ্বিতীয় দফায় ভর্তি করা হয়। একই দিন তাঁর স্ত্রী শিখা ও ছেলে চন্দন সিংহকেও আইসোলেশনে নেওয়া হয়। পরিবারের একাধিক সদস্য জ্বর, সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হওয়ায় এলাকায় করোনা-ভীতি তৈরি হয়েছে।

ঠাকুরগাঁও : করোনাভাইরাস আক্রান্ত সন্দেহে ঠাকুরগাঁও আইসোলেশন বিভাগে ভর্তি হওয়া চিলারং ইউনিয়নের একই পরিবারের এক শিশুসহ পাঁচজনের শরীরে করোনার উপস্থিতি পায়নি আইইডিসিআর। সিভিল সার্জন ডা. মাহফুজার রহমান সরকার গতকাল সকালে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তাঁদের শারীরিক অবস্থা অনেকটাই উন্নতির পথে।

জয়পুরহাট : গোপীনাথপুর আইএসটির আইসোলেশনে ভর্তি হওয়া তিন রোগীর নমুনা পরীক্ষায় করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব পায়নি আইইডিসিআর। গত শনিবার তাদের নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠিয়েছিল জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।

সিভিল সার্জন ডা. মো. সেলিম মিঞা জানান, আইসোলেশনে থাকা কালাই ও ক্ষেতলাল উপজেলার তিন রোগীর নমুনা পরীক্ষায় করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব না পাওয়ার তথ্য ই-মেইলের মাধ্যমে আইইডিসিআর নিশ্চিত করেছে।

অন্যদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় জয়পুরহাটে আরো পাঁচজনসহ হোম কোয়ারেন্টিনে ১৫৫ জন এবং আইসোলেশনে চার রোগী ভর্তি হয়েছে। ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে ২৫ জনকে।

নলছিটিতে ২২ জন হোম কোয়ারেন্টিনে

ঝালকাঠি : ঝালকাঠির নলছিটি পৌর এলাকার অনুরাগ গ্রামে ভারত থেকে আসা এক ব্যক্তি জ্বর, সর্দি ও কাশিতে আক্রান্ত হওয়ায় আশপাশের তিনটি বাড়িতে লাল নিশান টাঙিয়ে দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। একই সঙ্গে তিনটি বাড়িতে বসবাসকারী ২২ জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

পৌর কাউন্সিলর আবদুল্লাহ আল মামুন লাবু জানান, ওই ব্যক্তি অসুস্থ অবস্থায় শ্বশুরবাড়িতে আসার খবর পেয়ে স্থানীয়রা বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুম্পা সিকদারকে জানান। তাঁর নির্দেশে গতকাল সংশ্লিষ্ট তিনটি বাড়িতে লাল নিশান টাঙিয়ে দেওয়া হয়।

জেলা প্রশাসক জোহর আলী বলেন, তিনটি বাড়ির বাসিন্দারা ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টিনে থাকবে। তাদের প্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হবে।

স্টেশনে অজ্ঞাতপরিচয় লাশ, উদ্ধারে অনীহা

নাটোর : নাটোর রেলস্টেশনে অজ্ঞাতপরিচয় এক লাশ উদ্ধার করে দাফনের ব্যবস্থা করেছে পৌর কর্তৃপক্ষ। স্টেশনমাস্টার অশোক চক্রবর্তী জানান, গতকাল সকাল ১১টার দিকে স্টেশনের প্রবেশপথে অজ্ঞাতপরিচয় ওই ব্যক্তির লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়। কিন্তু করোনাভাইরাস আক্রান্ত হতে পারে শঙ্কায় সবাই দায়িত্ব এড়িয়ে যায়। বিকেলে মেয়র উমা চৌধুরীর নির্দেশে পৌর কর্মচারীরা লাশ উদ্ধার করে দাফনের ব্যবস্থা করেন।

হবিগঞ্জ : জেলায় হোম কোয়ারেন্টিন শেষ হয়েছে ৭৬১ জনের। আরো ৩৩৯ জন রয়েছে হোম কোয়ারেন্টিনে। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) অমিতাভ পরাগ তালুকদার গতকাল এই তথ্য জানান।

এদিকে হবিগঞ্জ শহরের ঘাটিয়া এলাকায় সঞ্জীব (১৫) নামে এক কিশোরের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য গতকাল ঢাকায় পাঠানো হয়।

সিরাজগঞ্জে ছয়জনের নমুনা ঢাকায় প্রেরণ

সিরাজগঞ্জ : জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে তিন স্বাস্থ্যকর্মীসহ ছয়জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ঢাকায় আইইডিসিআরে পাঠানো হয়েছে। তাঁদের মধ্যে তিনজন নারী ও তিনজন পুরুষ। তাঁরা সবাই হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন। সিভিল সার্ভিস অফিস এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

সূত্র: দৈনিক কালেরকণ্ঠ.কম

Check Also

করোনায় দেশে সর্বোচ্চ ৪০ মৃত্যুর রেকর্ড

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ৪০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এতে মোট মৃতের …