সাকিবের সেই ‘অশালীন’ অঙ্গভঙ্গির মূল ঘটনা জানালেন শফিউল


ঘটনার পটভূমি ২০১৪ সাল। সেবার শ্রীলংকার বিপক্ষে হোম সিরিজের একটি ম্যাচে টাইগার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের বিরুদ্ধে ড্রেসিংরুমে অশালীন অঙ্গভঙ্গির অভিযোগ আনা হয়। এর ফলে তাকে তিন ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা দেয়ার পাশাপাশি তিন লাখ টাকা জরিমানাও করা হয়। দীর্ঘদিন পর সেই ঘটনার কারণ জানিয়েছেন জাতীয় দলের ফাস্ট বোলার শফিউল ইসলাম।

শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচটিতে গুরুত্বপুর্ণ মুহূর্তে আউট হয়ে যান সাকিব আল হাসান। তার আউটের ভিডিও পুনঃপ্রদর্শনের এক পর্যায়ে ড্রেসিংরুমের দিকে টিভি ক্যামেরা তাক করা হয়। এসময় দেখা যায় সাকিব তার গোপনাঙ্গের দিকে আঙ্গুল দেখিয়ে ও টিভি ক্যামেরার দিকে তাকিয়ে অশালীন অঙ্গভঙ্গি করেন যা জায়ান্ট স্ক্রিনের পর্দায় ভেসে ওঠে।
দীর্ঘ ছয় বছর পর সেসময় সাকিবের পাশে বসে থাকা শফিউল জানান, বাস্তবে উদ্দেশ্যমূলকভাবে কিছুই করেননি টাইগার অলরাউন্ডার। সবকিছু নিছক মজার ছলেই ঘটেছিল এবং এ বিষয়ে সাকিবের কোনো দোষই ছিল না।

সম্প্রতি দেয়া এক সাক্ষাৎকারে শফিউল বলেন, ‘আসলে ওই ম্যাচটা আমাদের জন্য খুব ক্লোজ ছিল। ওইসময় ক্রুশিয়াল মোমেন্টে সাকিব ভাই আউট হয়ে খুব উত্তেজিত ছিল। ফ্রেশরুম থেকে ফ্রেশ হয়ে টাওয়েল পড়েই তিনি ড্রেসিংরুমে চলে আসছিলন। আসলে উনিও বুঝে নাই। ক্যামেরাটা যখন তার দিকে ধরছে তখন উনি বলেছিলেন ক্যামেরা সড়াতে। তখন হয়তো মনের অজান্তেই ওইরকম করে বসেছিলেন।’

এই ফাস্ট বোলার আরো বলেন, ‘ড্রেসিংরুমে তো অনেক ধরণের কথাই হয়। কথা বলতে বলতে আমি হাসছিলাম। ওই সময় ফানি কথাই হচ্ছিলো। আমিও হেসে দিয়েছিলাম। পরে তো ওখানে কি হয়েছিল জানতে আমাকেও ডাকা হয়েছিল। আমি তখন বলেছি আসলে অনেক ধরণের কথাই তো হয়। এছাড়া সাকিব ভাই খারাপ কিছু বলেননি। যখন সাকিব ভাই আউট হয়ে আসছে তখন হয়তো তার মনটা খারাপ ছিল। তিনি বলছিলেন, আউট হয়ে এসেছি কিন্তু ড্রেসিংরুম পর্যন্ত ক্যামেরা ধরার কি দরকার? আসলে নিজের অজান্তেই যে এত কিছু হয়ে যাবে সেটা কেউ ভাবে নাই।’

Check Also

সাকিবকে হত্যার হুমকি দেয়া সেই যুবকের পরিচয় মিলল

ফেসবুকে লাইভে এসে দা উঁচিয়ে সাকিব আল হাসানকে হত্যার হুমকি দেয়া সেই যুবককে খুঁজছে পুলিশ। …