স্ত্রী-সন্তানের নমুনা পরীক্ষার আকুতি করোনা আক্রান্ত সাংবাদিকের

চট্টগ্রামের জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক সাইফুল ইসলাম শিল্পী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। নমুনা দেয়ার পর নানা তদবিরে তিন দিনের মাথায় তার রিপোর্ট আসে। কিন্তু গত তিন দিনেও পরিবারের কোনো সদস্যদের করোনা পরীক্ষার উদ্যোগ নেয়নি চট্টগ্রামের স্বাস্থ্য প্রশাসন।

জানা গেছে, গত ১০ মে সাইফুল ইসলাম শিল্পী সীতাকুণ্ডে বিশেষায়িত হাসপাতাল বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেজে (বিআইটিআইডি) তার নমুনা পরীক্ষার জন্য দিয়েছিলেন। ১২ মে তার করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এরপর থেকে তিনি চট্টগ্রাম ফিল্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

নিয়ম অনুযায়ী কারও নমুনা পরীক্ষার ফলাফল পজিটিভ আসলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করার কথা। কিন্তু সাইফুল ইসলাম আক্রান্ত হওয়ার তিন দিন পার হলেও তার পরিবারের সদস্যদের কারও নমুনা সংগ্রহ করেনি প্রশাসন।

এ বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন চট্টগ্রামের প্রথম করোনা আক্রান্ত সাংবাদিক সংবাদ সংস্থা ইউএনবির চট্টগ্রাম প্রতিনিধি ও অনলাইন পোর্টাল পাঠক ডট নিউজের সম্পাদক সাইফুল ইসলাম শিল্পী।

ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডি থেকে দেয়া স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন, ‘আমার স্ত্রী সন্তানদের নমুনা পরীক্ষার ব্যবস্থা নিন প্লিজ। আজ (১৪ মে) আমার করোনা পজিটিভ ধরা পড়ার তিনদিন হয়ে গেছে। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নমুনা কালেকশন করার নিয়ম থাকলেও বার বার যোগাযোগ করার পরেও সাড়া দিচ্ছে না সিভল সার্জন অফিস ও ফৌজদারহাট বিআইটিআইডি। স্ত্রী, তিন সন্তান ও বৃদ্ধা শাশুড়িকে নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছি।’

সাইফুল ইসলাম শিল্পী মুঠোফোনে জাগো নিউজকে বলেন, ‘নিজের চাইতে পরিবারের সদস্যদের জন্য বেশি চিন্তা হচ্ছে। সেখানে একজন বৃদ্ধ মানুষও রয়েছেন। বারবার যোগাযোগ করেও কোনো সমাধান পাচ্ছি না।’

এর আগে তিনি জানিয়েছিলেন, জ্বর ছিল বলে গত ১০ মে তিনি বিআইটিআইডিতে তার নমুনা পরীক্ষার জন্য দিয়েছিলেন। বেশ কয়েকবার যোগাযোগ করে বিশেষ অনুরোধে তার নমুনা দুই দিনের মাথায় পরীক্ষা করা হয়। মঙ্গলবার (১২ মে) যে রিপোর্ট দেয়া হয় সেগুলো ৭ মে তারিখে দেয়ার নমুনার।

 

Check Also

‘পাত্র চাই’ বিজ্ঞাপনে প্রতারণা, ৩০ কোটি টাকা আত্মসাৎ

‘কানাডার সিটিজেন ডিভোর্সি ও সন্তানহীন নারীর জন্য পাত্র চাই’, সংবাদপত্রে এমন চটকদার বিজ্ঞাপন দিয়ে ৩০ …