অনন্ত জলিলকে বয়কট করলেন মেহের আফরোজ শাওন

ধর্ষণের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছেন দেশবাসী। চলছে আন্দোলন-প্রতিবাদ। শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি সমাজের নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ নেমে এসেছেন রাস্তায় ধর্ষণ প্রতিরোধে ধর্ষকদের মৃত্যুদণ্ডের বিধান চেয়ে। দেশের তারকারাও চুপ করে নেই। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কিংবা রাজপথ; সবখানেই তারা অংশ নিচ্ছেন ধর্ষকের বিরুদ্ধে।

এমন অবস্থায় চরম আকারে বিতর্ক উসকে দিলেন চিত্রনায়ক ও প্রযোজক অনন্ত জলিল। ধর্ষকদের শাস্তি চেয়ে একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন তিনি গতকাল ফেসবুকে। সেখানে ধর্ষকদের কঠোর সমালোচনা করে তাদের মৃত্যুদণ্ড চেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

কিন্তু ৬ মিনিটেরও বেশি দীর্ঘ ভিডিওটিতে অনন্ত দাবি করেছেন, নারীর পোশাক ধর্ষণের জন্য দায়ী, যা নিয়ে এরই মধ্যে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। অনেকেই প্রতিবাদ জানাচ্ছেন অনন্ত জলিলের এই মন্তব্যের। অনেক তারকা হতাশা প্রকাশ করেছেন সিনেমার একজন নায়ক এবং দেশের প্রথম শ্রেণির একজন ব্যবসায়ী হয়েও কেমন করে নারীর পোশাককে তিনি ধর্ষণের জন্য দায়ী মনে করতে পারেন।

এদিকে অভিনেত্রী, পরিচালক মেহের আফরোজ শাওন অনন্তকে বয়কটের ঘোষণা দিয়েছেন।

‘মোস্ট ওয়েলকাম’খ্যাত অভিনেতা অনন্ত’র ভিডিওটি দেখার পরই তিনি এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সেটা অনুমান করা গেছে তার ফেসবুক স্ট্যাটাস থেকেই। তিনি আজ রোববার (১১ অক্টোবর) দুপুরে লিখেছেন, ‘আমি মেহের আফরোজ শাওন, বাংলাদেশের একজন চলচ্চিত্র ও মিডিয়াকর্মী এবং স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্রের সচেতন নাগরিক হিসেবে বাংলাদেশের নারীদের প্রতি কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য এবং অসংলগ্ন বক্তব্য সম্বলিত ভিডিও বার্তা দেয়ার জন্য জনাব অনন্ত জলিলকে বয়কট করলাম।’

তার এ সিদ্ধান্তকে অনেকেই সাধুবাদ জানিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, মেহের আফরোজ শাওন দেশের একজন প্রতিষ্ঠিত সংস্কৃতিকর্মী। নৃত্য, অভিনয়, সংগীত; সবখানেই তিনি নিজের মেধার বিকাশ ঘটিয়েছেন। পেয়েছেন কাজের স্বীকৃতি হিসেবে জনপ্রিয়তাও। নাটক ও সিনেমা পরিচালনায়ও নিজের মুন্সিয়ানা দেখিয়েছেন তিনি। তিনি প্রয়াত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের স্ত্রী। সংস্কৃতি চর্চার পাশাপাশি নানা রকম সমাজ সচেতন কার্যক্রমে সক্রিয় দেখা যায় তাকে।

Check Also

কিসের টানে অভিনয় ছাড়লেন কুসুম

নাটক এবং চলচ্চিত্র নিয়েই ছিল অভিনেত্রী কুসুম শিকদারের ব্যস্ততা। হঠাৎ করেই সেই ব্যস্ততা থেকে দূরে …