সাতদিনে ওজন কমাবে লেমন ডিটক্স ডায়েট

ওজন কমাতে শারীরিক কসরত, কঠোর ব্যায়ামের পাশাপাশি ডিটক্স পানীয় খুবই কার্যকরী। একথা মোটামুটি সবারই জানা। নানা ধরনের ডিটক্স পানীয় পান করে থাকেন ডায়েটে থাকা স্বাস্থ্য সচেতনরা।
শরীরের ওজন অধিক পরিমাণে বেড়ে গেলে তা নারী-পুরুষ উভয়ের জন্যই অস্বস্তিকর। ওজন বাড়লে আপনার দৈহিক সৌন্দর্য কমে যায়। আবার অতিরিক্ত ওজন ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ এমনকি ক্যান্সারের মতো বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি বাড়ায়। তাই ওজন কমাতে লেমন ডিটক্স ডায়েট অনুসরণ করতে পারেন। এই ডায়েট আপনাকে সাত দিনের মধ্যে ওজন কমাতে সহায়তা করবে।

লেমন ডিটক্স ডায়েটিং কি?
লেমন অর্থাৎ লেবুর ডিটক্স ডায়েটিং একটি বিশেষ ডায়েট। যেখানে নিয়মিত খাবারের তালিকার সিংহভাগই থাকবে লেবু। ১৯৪০-এর দশকে স্ট্যানলি ব্যারো এটিকে জনপ্রিয় করে তোলেন।

এর আরেক নাম হলো মাস্টার ক্লিনজার। কারণ লেমনেড আপনার শরীরের কোষ থেকে বিষাক্ত টক্সিন নিষ্কাশন করে। যা আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে আপনাকে ভেতর থেকে চাঙ্গা করে তুলতে সহায়তা করবে।

ফলে আপনি বাইরের অসুখ-বিসুখ মোকাবিলা করতে বাড়তি উৎসাহ পান। বস্তুত এটা একটা স্ট্রিক্ট ফাস্টিং ডায়েট যেখানে আপনাকে পুরোপুরি লিকুইড এর উপর নির্ভর করেই দিনের খাদ্যাভ্যাস নিয়ন্ত্রণ করতে হয়।

ক্যালোরির ইনটেক কমানো এই ডায়েটের প্রধান লক্ষ্য। এই ডায়েট কোলনের উপকার করে। এটাকে এক্সট্রিম ডায়েট এই জন্য বলা হয় যে, এই ডায়েট চলাকালীন আপনি কোনো সলিড ফুড নিতে পারবেন না। অনেকে অবশ্য ডায়েটের শুরু ও শেষদিকে হালকা খাবার এড করে নেন।

লেবু কেন এই ডায়েটের মুখ্য উপাদান?

লেমন ডায়েটে লেবুর প্রধান একটা ভূমিকা রয়েছে। লেবু একটি প্রাকৃতিক জীবাণুনাশক সাইট্রাস ফল। যা শরীরে এসিড ও ক্ষার এর ভারসাম্য বজায় রাখে। এর সাইট্রিক এসিড লিভার এর যত্ন নেয় ও ডিটক্সিফিকেশন করে। পাশাপাশি স্থূলতা কমায় ও ত্বকের জেল্লা ও বাড়ায়।

এই ডায়েটে প্রতিদিন ৬০০ ক্যালোরি পর্যন্ত গ্রহণ করা যায়। সেলিব্রেটিদের অনেকেই তাদের ব্যস্ত জীবনে ফিট থাকতে এই ডায়েট ফলো করে থাকেন। লেবুতে ভরপুর ভিটামিন এ, বি১, বি২, বি৩, বি৬, বি৯, ম্যাঙ্গানিজ, পটাশিয়াম, দস্তা, লোহা, ক্যালশিয়াম, ফসফরাস ও কিছু পরিমাণে কার্বোহাইড্রেটও থাকে। এতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীর থেকে ফ্রি রাডিক্যাল বের করে দেয় এবং হৃদরোগ ও ক্যান্সার থেকে সুরক্ষা প্রদান করে।

লেমনেডের উপকারিতা

ওবেসিটি রিস্ক কমায়। মেটাবলিজম স্ট্রং করে ক্যালোরি বার্ন করে। যারা নিয়মিত জিমে গিয়ে শরীরচর্চা করতে পারেন না কিন্তু ব্যস্ত লাইফস্টাইলে অভ্যস্ত তারা খাদ্যাভ্যাসে এই পরিবর্তন এনেই সুফল পাবেন।

এটি দৈহিক শক্তি বাড়ায় ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। আলস্য ভাব কাটায় ও কোষ্ঠকাঠিন্যর সমস্যা দূরীভূত হয়। ত্বকের জৌলুস ফেরায়। দ্রুত ওজন কমাতে সাহায্য করে। শরীরে রেচন ও বিপাক ক্রিয়ার উন্নতি ঘটায়। অর্গানগুলোর ফিলট্রেশন ক্ষমতা বাড়ে।

লেমন ডিটক্স এর ধাপগুলো

লেমন ডিটক্সিং সাতদিনব্যাপী চলা একটা প্রক্রিয়া। এখানে লিকুইডের উপরেই আপনাকে ডায়েট করতে হবে। তারপর আস্তে আস্তে নরমাল ডায়েটে ফিরতে পারবেন। যদি মনে হয় শুধু ডিটক্সে আপনি দুর্বল অনুভব করছেন কিংবা খুব বেশি খুদা পাচ্ছে। তাহলে সাপ্লিমেন্ট হিসেবে ফলের সালাদ, কিনওয়া সালাদ, স্প্রাউট, গ্রীন টি খেতে পারেন।

প্রথম ধাপ

এই স্টেপে জাঙ্ক ফুড পুরোপুরি বর্জন করতে হয়। তেল মশলাযুক্ত খাবার বা প্রসেসড ক্যান ফুড যেগুলোতে কোলেস্টেরল থাকে পুরোপুরি বাদ। ব্রেকফাস্টে টক জাতীয় খাদ্য এবং লেমনেড বাড়াতে হয় এবং সেই সঙ্গে অল্প কার্বোহাইড্রেট থাকবে এরকম কিছু নিতে পারেন।

দ্বিতীয় ধাপ

এটা সবচেয়ে কঠিন ফেজ। এই পর্যায়ে শুধু ডিটক্স ডায়েট চলবে। এটিকে শরীরের শুদ্ধিকরণ ধাপ বলা যেতে পারে। দিনে ৬ বার লেমনেড নিতে হবে।

তৃতীয় ধাপ

প্রতিদিনের ডায়েটে সলিড খাবার রাখুন। প্রথমে কম কম করে কঠিন খাবার খেতে হবে। যেমন এক কাপ দই ও সঙ্গে কয়েকটা আমন্ড। এরপর যুক্ত হতে পারে সবজির সালাদ বা স্যান্ডউইচ। এইভাবে নর্মাল ডায়েট ফিরিয়ে আনুন।

যেভাবে বানাবেন লেমনেড-

ফ্রেশ লেমন স্লাইস নিয়ে প্রেস করে তার জুস নিংড়ে রাখুন। এরপর তাতে ম্যাপল সিরাপ, কেইন পেপার ও গরম পানি মিশিয়ে ডিটক্স ড্রিংক রেডি তৈরি করুন। স্বাদের জন্য খানিকটা মধু দিতে পারেন ভালো লাগবে। এটি হজম শক্তি বাড়াবে।

Check Also

ডাল খান, ওজন কমান

স্লিম ও ফিট হতে কে না চায়। নিজের বাড়তি ওজন নিয়ে চিন্তিত প্রত্যেকে। অত্যধিক ওজন …